বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন




বিজয় দিবসের আগেই রাজাকারের আংশিক তালিকা প্রকাশ

খবরপত্র ডেস্ক:
  • আপডেট সময় রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০




বিজয় দিবসের আগেই রাজাকারের আংশিক তালিকা প্রকাশ করা হবে। মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি থেকে গঠিত এ উপকমিটি এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছে। গতকাল রোববার সংসদীয় কমিটির বৈঠক শেষে কমিটির সভাপতি ও ওই উপ-কমিটির আহ্বায়ক শাজাহান খান সাংবাদিকদের একথা বলেন।তিনি বলে, আগামী ৭ থেকে ১০ দিনের মধ্যে আমরা একটা মিটিং করবো। এরই মধ্যে কাজ শুরু করেছি। কিছু তালিকা আমরা সংগ্রহ করেছি। আশা করছি আগামী ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে আংশিক তালিকা প্রকাশ করবো। পর্যায়ক্রমে আমরা পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, গত ৯ অগাস্ট রাজাকারের তালিকা তৈরি করতে ছয় সদস্যের উপ-কমিটি গঠন করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। গত বছর বিজয় দিবসের আগের দিন সংবাদ সম্মেলন করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী ১০ হাজার ৭৮৯ জন ‘স্বাধীনতাবিরোধীর’ তালিকা প্রকাশ করেন। ওই তালিকায় গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ পরিবারের সদস্যদের নাম আসায় ক্ষোভ আর সমালোচনার প্রেক্ষাপটে তালিকা স্থগিত করা হয়। পরে সংসদে প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী মোজাম্মেল হক বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের থেকে পাওয়া রাজাকার, আল-বদর, আল-শামস এবং স্বাধীনতাবিরোধীদের তথ্য হুবহু মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। এ তালিকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নাম অন্তর্ভুক্ত হয়েছে বলে অভিযোগ উত্থাপিত হলে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট থেকে তা প্রত্যাহার করা হয়। বৈঠকে মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) অনিয়ম তদন্তে সংসদীয় উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের একটি সংগঠন এবং একজন মুক্তিযোদ্ধার পৃথক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়টি তদন্তের সিদ্ধান্ত নিয়ে এ উপ-কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির সভাপতি শাজাহান খানকে আহ্বায়ক করে গঠিত উপ-কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, কাজী ফিরোজ রশীদ ও মোসলেম উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী। খেতাবপ্রাপ্ত শহীদ ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা কেন্দ্রীয় কমান্ড এবং বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের সদ্য সাবেকসহ সাংগঠনিক সম্পাদক ওসমান গণি কমিটির কাছে লিখিত আবেদন করে মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্টের এমডি মো. ইফতেখারুল ইসলাম খানের বিরুদ্ধে তদন্তের দাবি জানিয়েছে। চিঠিতে তারা এমডির বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার, অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারিতাসহ নানা দুর্নীতির অভিযোগ তুলেছেন।

আর আগে প্রকাশিত তালিকা নিয়ে ক্ষোভ আর প্রতিবাদের পর তা স্থগিত করে: এ প্রসঙ্গে বিবিসি’র এর ১৮ ডিসেম্বর ২০১৯ এক প্রতিবেদনে লিখেছে,‘বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর প্রকাশিত রাজাকারের তালিকাটি নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক ওঠায় শেষ পর্যন্ত সেটি স্থগিত করেছে সরকার। এরই মধ্যে মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট থেকে ওই তালিকা সরিয়েও ফেলা হয়েছে।
মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, রাজাকারের তালিকা যাচাই করে সংশোধনের জন্য আগামী ২৬শে মার্চ পর্যন্ত সেটি স্থগিত করা হয়েছে। ওদিকে আওয়ামী লীগের এক সভায় বক্তব্যকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় কোলাবরেটরদের তালিকা করতে গিয়ে গোলমাল পাকিয়ে ফেলেছে। অনেক মুক্তিযোদ্ধার নাম ঢুকে গেছে। এটা কোনোভাবেই রাজাকারের তালিকা নয়। এতে যারা কষ্ট পেয়েছেন তাদের শান্ত হতে ও ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ করে তিনি বলেন রাজাকার,আল-বদর,আল-শামস সবার তালিকা গেজেট করা আছে। তবে নতুন তালিকা কবে প্রকাশিত হবে সেটি সরকারের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়নি। মন্ত্রণালয়ের সচিব এস এম আরিফ-উর-রহমান জানিয়েছেন, যাচাই-বাছাই করে সংশোধিত তালিকা প্রকাশে যতটা সময় লাগে, ততটা সময়ই তারা নেবেন। সেক্ষেত্রে কবে নাগাদ নতুন তালিকা প্রকাশিত হতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে বিবিসি বাংলাকে তিনি বলেন, “গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো সঠিক ভাবে যাচাই-বাছাই করে একটি নির্ভুল তালিকা করা। আমরা সেটিকেই গুরুত্ব দিচ্ছি”। গত রোববারে প্রকাশিত রাজাকারের তালিকায় অনেক মুক্তিযোদ্ধা, এমনকি মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক কয়েকজনের নাম অর্ন্তভূক্ত করা হয়েছে, এমন অভিযোগ ওঠার পর এ নিয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু হয়। দশ হাজার ৭৮৯ জনের ওই তালিকা প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছিল যে এরা ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজাকার, আল-বদর, আল-শামসসহ স্বাধীনতাবিরোধী বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে জড়িত ছিল । তালিকা প্রকাশের পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার জন্ম হয় এবং দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ দেখা দেয়। এক পর্যায়ে উদ্ভূত পরিস্থিতির জন্য দুঃখ প্রকাশ করে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী জানান যে ভুলভাবে কোনো মুক্তিযোদ্ধার নাম এলে তাদের পক্ষ থেকে মন্ত্রণালয়ে আবেদন করা হলে তা তদন্ত করে তালিকা সংশোধন করা হবে। ওদিকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে আন্দোলনকারী সংগঠনগুলো ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তান বাহিনীকে সহায়তাকারী রাজাকার, আল-বদরসহ স্বাধীনতা বিরোধীদের তালিকায় মুক্তিযোদ্ধাদের নাম আসার বিষয়ে তদন্তের দাবি তোলেন। এদিকে আজই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানান, তালিকাটি যাচাই-বাছাই ও সংশোধনের পর নতুন করে প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এর কয়েক ঘণ্টা পরই ‘বিতর্কিত তালিকাটি’ ২৬শে মার্চ পর্যন্ত স্থগিতের ঘোষণা দেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী।’




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com