রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ১০:৪৪ অপরাহ্ন




ডিজিটাল আইনকে ‘বৃদ্ধাঙ্গুলি’, ১ মার্চ সারাদেশে বিক্ষোভ

খবরপত্র ডেস্ক:
  • আপডেট সময় শনিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১




ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল এবং কারাগারে লেখক মুশতাকের মৃত্যুর তদন্তের দাবিতে পহেলা মার্চ সারাদেশে বিক্ষোভের ঘোষণা দিয়েছে প্রগতিশীল ছাত্র জোট। গতকাল শনিবার সন্ত্রাসবিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশ থেকে এ ঘোষণা দেন বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা। এছাড়া একই দিনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাওয়ের ঘোষণা দিয়েছেন তারা। এছাড়া আগামী ৩ মার্চ সকাল ১১টায় দলমত নির্বিশেষে প্রেসক্লাবে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ‘বাংলাদেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে’ প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় অভিমুখে বিক্ষোভ পদযাত্রা করবেন তারা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক জাহিদ সুজন, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মশিউর রহমান খান রিচার্ড, ঢাবি শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক সজীব হোসেন, ঢাকা মহানগর শাখার সভাপতি সৈকত আরিফ, খুলনা জেলার আহ্বায়ক আল-আমিন।
এদিকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার বন্দিদের মুক্তিসহ তিনদফা দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে এই প্রগতিশীল ছাত্র জোট। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে ‘বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন’ করেন তারা। বিক্ষোভ মিছিল টিএসসি থেকে বের হয়ে শাহবাগ হয়ে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের সামনে সাকুড়া পয়েন্ট ঘুড়ে শাহবাগে এসে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়। বিক্ষোভ মিছিলে, ‘জেলের তালা ভাঙবো, বন্দিদের আনবো,’ ‘এরশাদ গেছে যে পথে, হাসিনা যাবে সে পথে’ বলে স্লোগান দেয় নেতাকর্মীরা।
বিক্ষোভ মিছিলে উপস্থিত ছিলেন ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ফয়েজ উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক দিপক শীল, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক রাশেদ শাহরিয়ার, রাশেদ শাহরিয়ার, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফন্টের কেন্দ্রীয় সভাপতি মাসুদ রানা, ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক জাহিদ সুজনসহ সংগঠনটি প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী।
শাহবাগে বিক্ষোভ সমাবেশে থেকে তারা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করেন। পহেলা মার্চ সারাদেশে বিক্ষোভসহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কার্যালয় ঘেরাওয়ের ঘোষণা দিয়েছেনা তারা। এছাড়া ৩ মার্চ সকাল ১১টায় দলমত নির্বিশেষে প্রেসক্লাবে ঐক্যবদ্ধ হয়ে বাংলাদেশে ‘গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে’ প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় অভিমুখে বিক্ষোভ পদযাত্রা করবেন তারা। বিক্ষোভ সমাবেশে তারা তিনটি দাবি উপস্থাপন করেন, লেখক মুশতাকের হত্যার বিচার চাই; ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে লেখক, সাংবাদিক, সাহিত্যিক, কার্টুনিস্টসহ যাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তাদেরকে অবিলম্বে মুক্তি দিতে হবে; ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করতে হবে। এছাড়া গতকাল মশাল মিছিলে গ্রেপ্তারকৃতদের নিঃশর্তে মুক্তির বাদি জানায় তারা।
সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল কাদেরী জয় বলেন, দেশে মানুষের মত প্রকাশের উপর একটা রাষ্ট্রীয় নিপীড়ন নেমে এসেছে। তার একটা চূড়ান্ত ফল দেখলাম, গত পরশু কারাগারে লেখক মুশতাকের মৃত্যু।
তিনি বলেন, একের পর এক পুলিশি হামলা করে, লাঠি মেরে আন্দোলন দমিয়ে রাখা যাবে না। এসব করে যদি আপনি মনে করেন জনগণকে দমিয়ে রাখবেন, তাহলে আপনি বোকার স্বর্গে বাস করছেন। আমাদের নেতাকর্মীরা প্রয়োজনে জেলায় জেলায় কারাগারে অবস্থান করবে।
ঢাবিতে ছাত্র ফেডারেশনের বিক্ষোভ মিছিল: কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদে ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়েছে। গতকাল শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে টিএসসির সামনে থেকে মিছিলটি শুরু হয়।
মিছিলটি শাহবাগ ঘুরে আবার টিএসসির দিকে চলে যায়। এসময় শাহবাগ থানার সামনে পুলিশের সতর্ক অবস্থান দেখা যায়। বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশনের ব্যানারে আয়োজিত এই মিছিলে কেন্দ্রীয় কমিটিসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। মিছিল থেকে আন্দোলনকারীরা কারাবন্দি অবস্থায় লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর প্রতিবাদ ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবি জানান। একইসঙ্গে কার্টুনিস্ট কিশোরের মুক্তির দাবি করেন। গত বছরের ৬ মে মুশতাককে তার লালমাটিয়ার বাসা থেকে গ্রেপ্তোর করার পর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছিল। বৃহস্পতিবার রাতে গাজীপুরের কাশিমপুরের হাই সিকিউরিটি কারাগারে মৃত্যু হয় ৫৩ বছর বয়সী মুশতাকের।
৭ জনকে আসামি করে পুলিশের মামলা: লেখক মুশতাক আহমেদের মৃত্যুর তদন্ত ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে রাজধানীর শাহবাগে মশাল মিছিলের সময় পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে মামলা হয়েছে। মামলায় ৭ জনকে আসামি করা হয়েছে। এছাড়া অজ্ঞাতানামা আরও ১০০/১৫০ জনকে আসামি করা হয়েছে। গতকাল শনিবার শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুনুর রশীদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় শাহবাগ থানায় একটি মামলা করা হয়েছে। মামলায় পেনাল কোডের ১৪৩/১৪৭/১৪৯/১৮৬/৩৩২/৩৩৩/৩০৭/৩৫৩/৪২৭/১০৯ ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। মামলাটি করেছেন শাহবাগ থানার এসআই মিন্টু মিয়া। মামলা নম্বর-৩৪।
তিনি আরও বলেন, শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) মশাল মিছিল থেকে আটক তামজীদ হায়দার, নজিব আমিন চৌধুরী জয়, এএসএম তানজিমুর রহমান, আকিব আহম্মেদ, আরাফাত সাদ, নাজিফা জান্নাত, জয়তী চক্রবর্তীকে মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তাদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সাতদিনের পুলিশ রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com