বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৬:২৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম ::
রামগতির মেঘনায় ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ, জেলেদের মুখে হাসি গঙ্গাচড়ায় বিলীন হওয়ার পথে শিমুল গাছ কঠোর লকডাউনের মধ্যেও বরিশালের লাহারহাটে প্রশাসনের চোখের সামনেই চলছে অবৈধ স্পিডবোট মৌলভীবাজারে গত ২৪ ঘন্টায় সর্বোচ্চ আরও ২২৫ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের রেকর্ড ‘অক্সিজেন এক্সপ্রেস’ ট্রেন থেকে ভারতীয় তরল মেডিকেল অক্সিজেন খালাস করে সড়ক পথে নেয়া হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্টে ফেনী সদর উপজেলা ও পৌর বিএনপির উদ্যোগে করোনা ভ্যাকসিন রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমের উদ্বোধন ‘জয়যুগান্তর পত্রিকার অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান অনুকরণীয়’ যুবলীগ নেতা বক্করের উদ্যোগে আলাউদ্দিন নাসিমের সুস্থতা কামনায় সালাতুন নারিয়া খতম দুর্গাপুরে কমরেড মণি সিংহের ১২০তম জন্মজয়ন্তী পালিত কমলনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সেবা ব্যাহত, ৫২ পদের মধ্যে ৩০ টি শূন্য




অনলাইনে অনুষ্ঠিত হবে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের বিএড পরীক্ষা

খবরপত্র ডেস্ক:
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ১৩ জুলাই, ২০২১




সারাদেশের ১৮টি শিক্ষক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটের প্রায় ৬ হাজার ব্যাচেলর অব এডুকেশন (বিএড) প্রশিক্ষাণার্থীদের অনলাইনে চূড়ান্ত পরীক্ষা শিগগিরই নেবে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় (বাউবি)। প্রত্যেক প্রশিক্ষণার্থীকে ২০ থেকে ৩০ মিনিটের মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে চূড়ান্ত মূল্যায়ন করা হবে।
এবিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৈয়দ হুমায়ুন আখতার বলেন, ‘পরীক্ষা আগেই নেওয়া যেত। কিন্তু নিয়মিত উপাচার্য না থাকায় সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। চাকরিজীবী প্রশিক্ষণার্থীদের পরীক্ষা না হওয়ায় তারা সনদ পাচ্ছেন না। ফলে চাকরিজীবীরা কর্মক্ষেত্রে ইনক্রিমেন্ট থেকেও বঞ্চিত হচ্ছেন। আমরা অনলাইনে পরীক্ষা নেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছি। প্রত্যেক প্রশিক্ষিাণার্থীকে অনলাইনে ২০ থেকে ৩০ মিনিটের মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে মূল্যায়ন করা হবে। তবে নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ সেটা গ্রহণ করবে কিনা তা নিশ্চিত হওয়ার প্রয়োজন রয়েছে।’
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব এডুকেশন পরিচালিত ব্যাচলর অব এডুকেশন (বিএড) প্রশিক্ষার্থীদের প্রায় সবাই চাকরিজীবী। চূড়ান্ত পরীক্ষা না হওয়ার কারণে প্রশিক্ষার্থীরা চাকরিতে ইনক্রিমেন্ট পাচ্ছেন না। প্রশিক্ষার্ণীরা গত কয়েক মাস ধরে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়কে চাপ দিয়ে আসলেও পরীক্ষার বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।
বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়, স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিটি কেন্দ্রে মাত্র তিনশো’র বেশি বা কম প্রশিক্ষার্থীর পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব ছিল। কিন্তু গত তিন মাস ধরে নিয়মিত উপাচার্য না থাকায় করোনার সংক্রমণ কম থাকার পরও পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হয়নি।
বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, করেনা পরিস্থিতির কারণে ২০১৯-২০২০ ব্যাচের দ্বিতীয় সেমিস্টারের পাঠদান অনশীলনের মূল্যায়ন পরীক্ষার হওয়ার কথা ছিল ১৮ জুন থেকে। কিন্তু করোনার বিস্তার রোধে গত ১৩ জুনের অফিস বিজ্ঞপ্তিতে দ্বিতীয় পাঠদান অনুশীলন মূল্যায়ন পরীক্ষা শুরুর তারিখ পিছিয়ে ঘোষণা করা হয় ৯ জুলাই। ওই বিজ্ঞপ্তিতে তৃতীয় এবং চূড়ান্ত পাঠদান অনুশীলন মূল্যায়ন পুরোপুরি স্থগিত করা হয়। এরপর করোনার প্রকোপ বাড়তে থাকায় গত ৮ জুন দ্বিতীয় পাঠদান অনুশীলনের মূল্যায়নও স্থগিত করা হয়।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com