রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৬:৩২ অপরাহ্ন




বাধা দিয়ে আন্দোলনকে দমানো যাবে না: মির্জা ফখরুল

ইকবাল হোসেন:
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২১




কর্মসূচিতে বাঁধা দিয়ে আন্দোলনকে দমানো যাবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। গতকাল বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন। হবিগঞ্জে সমাবেশে পুলিশি হামলার ঘটনা তুলে ধরে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, হবিগঞ্জে যে গুলিবর্ষণ হয়েছে, এর মূল কারণটাই ছিলো হবিগঞ্জ বিএনপির শক্তিশালী জায়গা। ওইখানে নেতৃবৃন্দ বরাবরই প্রমাণ করেছেন, সেখানে শক্তিশালী একটা সংগঠন আছে। সেজন্য এই জায়গাতে তারা আঘাত করেছে। পুলিশ অতর্কিত বিনা উস্কানিতে নির্বিচারে গুলিবর্ষণ করেছে।
তিনি বলেন, আমরা এটা খুব স্পষ্ট করে বলতে চাই এভাবে দমনপীড়ন করে, হত্যা করে, গুম করে কখনোই জনগণের যে ন্যায়সঙ্গত দাবি, তাদের যে অধিকার আদায় করার জন্য যে দাবি একটা গণতান্ত্রিক সমাজের জন্য, গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের জন্য এবং সবচেয়ে বড় যে দাবি নিয়ে এখন যে আমরা আন্দোলন করছি, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং তাকে বিদেশে পাঠানোর জন্য যে আন্দোলন করছি সেই আন্দোলনকে কখনই দমন করা যাবে না। বিএনপি মহাসচিব দাবি করে বলেন, হবিগঞ্জের বিনা উস্কানিতে শান্তিপূর্ণ সমাবেশের পুলিশি হামলা ও গুলিবর্ষণের ঘটনার সাথে জড়িতদের অবিলম্বে অপসারণ এবং নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে তাদেরকে বিচারের আওতায় আনারও দাবি জানানন ফখরুল।
তিনি জানান, হবিগঞ্জের সমাবেশে পুলিশের নির্বিচারে লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণে বিএনপির তিন‘শ নেতা-কর্মী আহত হয়েছে। এরমধ্যে ১০ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। একজনের চোখ নষ্ট হয়ে গেছে। আর হবিগঞ্জে পুলিশ অতর্কিতে হামলা চালিয়েছে। পুলিশ সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে শর্টগানে প্রায় ১২‘শ রাউন্ড গুলি ছোঁড়েছে। যেটা আইনত সারা বিশ্বে শর্টগানের গুলি ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
সিলেটের সব জেলা-উপজেলায় বিক্ষোভ করবে বিএনপি: হবিগঞ্জে বিএনপির সমাবেশে পুলিশ হামলা চালিয়েছে দাবি করে এর প্রতিবাদে আজ শনিবার (২৫ ডিসেম্বর) সিলেট বিভাগের উপজেলা ও রোববার (২৬ ডিসেম্বর) সব জেলায় বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। পাশাপাশি পুলিশ সুপারসহ জেলার তিন কর্মকর্তার অপসারণসহ আইনের আওতায় আনার দাবি করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার (২৩ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
মির্জা ফখরুল বলেন, দলীয় চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে দেশব্যাপী ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার সাতটি জেলায় সমাবেশ ছিল। এর মধ্যে ছয়টিতে শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশ করতে পারলেও হবিগঞ্জে পুলিশ পরিকল্পিতভাবে হামলা করে তিন শতাধিক নেতাকর্মীকে আহত করেছে। এর মধ্যে ১০ জনের অবস্থা গুরুতর।
তিনি এ হামলার জন্য হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার মুরাদ আলী, ওসি মাশুক আলী ও ওসি নাজমুল হাসানকে দায়ী করে অবিলম্বে তাদের অপসারণের দাবি জানান। মির্জা ফখরুল বলেন, দমনপীড়ন করে জনগণের ন্যায়সঙ্গত দাবির পক্ষে যে আন্দোলন তা দমন করা যাবে না। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য জয়নুল আবদিন ফারুক, মোকতাদির চৌধুরী, শাম্মী আকতার, বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার, শায়রুল কবির খান প্রমুখ।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com