সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০৪:৩৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম ::
শেরপুরে সরিষার বাম্পার ফলন নাজিরপুরের মাহামুদকান্দা মাদ্রাসার পরিচালনা পরিষদ কমিটিতে আবারও বিনা প্রতিদন্ধিতায় সভাপতি হলেন মিজানুর রহমান দুলাল পাখি কিনেন প্রভাবশালীরা, হরিণ শিকারও বেড়েছে গোদাগাড়ীতে পুরোদমে চলছে বোরো চাষবাদ নালিতাবাড়ীর নিশ্চিন্তপুর আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ বরিশালে ৬ষ্ট ও ৭তম শ্রেণির সিলেবাস বাতিলের দাবীতে ইমাম সমিতির বিক্ষোভ সমাবেশ চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীতে সামাজিক বনায়নের গাছ কাটা অতঃপর জব্দ শিক্ষা যেমন ডিজিটাল হচ্ছে তেমনি শিক্ষকদেরও ডিজিটাল হতে হবে- মনোহরদীতে শিল্পমন্ত্রী হারবাংয়ে জমি দখলে নিতে অসহায় মহিলার বসতভিটা আগুনে পুড়িয়ে দিলো দূর্বৃত্তরা আলফাডাঙ্গায় শিক্ষার্থীদের মাঝে কুরআন ও সনদ বিতরণ

১০ ডিসেম্বর বিএনপি চায় নয়াপল্টনেই সমাবেশ করতে

খবরপত্র প্রতিবেদক:
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২

২৬ শর্তে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতি দিয়েছে পুলিশ

বিএনপির ঢাকা বিভাগের গণসমাবেশের জন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) অনুমতি দিয়েছে। তবে বিএনপির পছন্দমতো নয়াপল্টনে নয়, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সেই সমাবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে দেওয়া হয়েছে ২৬টি শর্ত। বিএনপি বলছে, তাদের এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নয়াপল্টনেই সমাবেশ করার।
আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপি ঢাকায় সমাবেশ করবে। এ সমাবেশ নয়াপল্টনে করতে ডিএমপির কাছ থেকে বরাবর অনুমতি চেয়েছিল তারা। গতকাল মঙ্গলবার ডিএমপি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছে। এ বিষয়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘প্রথমত, আমরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুমতিই চাইনি। আমাদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করার কথাই আমরা ডিএমপি কমিশনারকে বলেছি। আমাদের এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত নয়াপল্টনেই করার। ডিএমপি যে চিঠি দিয়েছে, সেটা নিয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা বসবেন।’
বিএনপির ঢাকার সমাবেশ ঘিরে বেশ কিছুদিন ধরেই রাজনৈতিক অঙ্গনে উত্তাপ। সরকার নয়াপল্টনের ব্যাপারে শুরু থেকেই নারাজ। বিএনপিও এখানে করার ব্যাপারে অটল মনোভাব দেখিয়ে আসছে। শুরুতে ঢাকার বাইরে পূর্বাচলের মতো কোনো জায়গায় যেন বিএনপি সমাবেশ করে, সে কথা বলে আসছিলেন সরকার দলীয় নেতারা। অবশ্য ২৫ নভেম্বর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানিয়েছেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে অনুমতি দেওয়া হবে। এ ছাড়া আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারাও নয়াপল্টনে সমাবেশ না করতে দেওয়ার বিষয়ে ইঙ্গিত দিয়েছেন।
২৬ শর্তে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি পেয়েছে বিএনপি: আগামী ১০ই ডিসেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। মঙ্গলবার এ অনুমতি দিলেও ডিএমপির চিঠিতে বলা হয়েছে, এই অনুমতিপত্র স্থান ব্যবহারের অনুমতি নয়, স্থান ব্যবহারের জন্য অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে অনুমোদন নিতে হবে। গতকাল মঙ্গলবার বিএনপিকে দেয়া চিঠিতে সমাবেশের জন্য ২৬টি শর্ত দিয়েছে ডিএমপি। ডিএমপি কমিশনার খন্দকার গোলাম ফারুকের পক্ষে মঙ্গলবার ডিএমপির সদরদপ্তর ও প্রশাসন বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) আব্দুল মোমেন স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে অনুমতি দেয়া হয়। বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর কাছে এ চিঠি পাঠানো হয়। রাজধানীর নয়াপল্টনে আগামী ১০ই ডিসেম্বর সমাবেশ করতে চেয়ে বিএনপি আবেদন করেছিল। পরে ২২শে নভেম্বর দলটির পক্ষ থেকে কয়েকজন নেতা ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে সমাবেশ করার বিষয়ে জানান।
যেসব শর্তে অনুমতি দেয়া হয়েছে: ১. এই অনুমতিপত্র স্থান ব্যবহারের অনুমতি নয়, স্থান ব্যবহারের জন্য অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নিকট থেকে অনুমোদন নিতে হবে। ২. স্থান ব্যবহারের অনুমতিপত্রে উল্লেখিত শর্তাবলী যথাযথভাবে পালন করতে হবে ৩. সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের অভ্যন্তরে সমাবেশের যাবতীয় কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখতে হবে ৪. নিরাপত্তার জন্য নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পর্যাপ্ত সংখ্যক স্বেচ্ছাসেবক (দৃশ্যমান আইডি কার্ডসহ) নিয়োগ করতে হবে ৫. স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশস্থলের অভ্যন্তরে ও বাইরে উন্নত রেজ্যুলেশনযুক্ত সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে ৬. নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় প্রতিটি প্রবেশগেটে আর্চওয়ে স্থাপন করতে হবে এবং সমাবেশস্থলে আগতদের হ্যান্ড মেটাল ডিটেক্টরের মাধ্যমে (ভদ্রোচিতভাবে) চেকিং এর ব্যবস্থা করতে হবে ৭. নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় Vehicle Scanner / Search Mirror এর মাধ্যমে সমাবেশস্থলে আগত সকল যানবাহন তল্লাশীর ব্যবস্থা করতে হবে ৮. নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশস্থলে অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা রাখতে হবে ৯. সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বাইরে বা সড়কের পাশে মাইক/সাউন্ডবক্স ব্যবহার করা যাবে না ১০. সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বাইরে বা সড়কের পাশে প্রজেক্টর স্থাপন করা যাবে না ১১. সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বাইরে, রাস্তায় বা ফুটপাতে কোথাও লোক সমাবেত হওয়া যাবে না
১২. আযান, নামাজ ও অন্যান্য ধর্মীয় সংবেদনশীল সময় মাইক/শব্দযন্ত্র ব্যবহার করা যাবে না ১৩. ধর্মীয় অনুভূতির উপর আঘাত আসতে পারে এমন কোন বিষয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শণ, বক্তব্য প্রদান বা প্রচার করা যাবে না
১৪. অনুমোদিত সময়ের মধ্যে সমাবেশের সার্বিক কার্যক্রম শেষ করতে হবে ১৫. সমাবেশ শুরুর ২ (দুই) ঘন্টা পূর্বে লোকজন সমবেত হওয়ার জন্য আসতে পারবে। ১৬. সমাবেশস্থলের আশপাশসহ রাস্তায় কোন অবস্থাতেই সমবেত হওয়াসহ যান ও জন চলাচলে কোন প্রকার প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা যাবে না। ১৭. পতাকা, ব্যানার, ফেস্টুন বহনের আড়ালে কোন ধরণের লাঠি-সোটা, রড ব্যবহার করা যাবে না। ১৮. আইন-শৃঙ্খলা পরিপন্থি ও জননিরাপত্তা বিঘিœত হয় এমন কার্যকলাপ করা যাবে না। ১৯. রাষ্ট্র বিরোধী কোন কার্যকলাপ ও বক্তব্য প্রদান করা যাবে না। ২০. উষ্কানীমূলক কোন বক্তব্য প্রদান বা প্রচারপত্র বিলি করা যাবে না। ২১. মিছিল সহকারে সমাবেশস্থলে আসা যাবে না। ২২. পার্কিং এর জন্য নির্ধারিত স্থানে গাড়ী পার্কিং করতে হবে, মূল সড়কে কোন গাড়ী পার্কিং করা যাবে না। ২৩. সমাবেশস্থলে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি হলে আয়োজনকারী কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে। ২৪. স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে অনুসরণপূর্বক সমাবেশ পরিচালনা করতে হবে। ২৫. উল্লেখিত শর্তাবলী যথাযথভাবে পালন না করলে তাৎক্ষনিকভাবে এই অনুমতির আদেশ বাতিল বলে গণ্য হবে। ২৬. জনস্বার্থে কর্তৃপক্ষ কোনো কারণ দর্শানো ব্যতিরেকে এই অনুমতি আদেশ বাতিল করার ক্ষমতা সংরক্ষণ করেন।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com