মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:০৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম ::
জয়পুরহাটে ১ লাখ ৩৫ হাজার মেট্রিক টন শাক সবজি উৎপাদন হয়েছে সাউথইস্ট ব্যাংক রেমিট্যান্স ক্যাম্পেইনের সাথে ১০টি এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন চুয়াডাঙ্গা জেলার হাজরাহাটী এলাকায় শীতবস্ত্র বিতরণ করল শাহ্জালাল ইসলামী ব্যাংক শ্রীমঙ্গল উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির নির্বাচন ঝলক সভাপতি এবং আখতার সম্পাদক সংগীত পরিচালক আনোয়ার জাহান নান্টু আর নেই এ যেন চুয়াত্তরের দুর্ভিক্ষের প্রতিচ্ছবি, পদধ্বনি: প্রিন্স ভূমিকম্পে ধ্বংসস্তূপ তুরস্ক ও সিরিয়া, মৃত প্রায় ২০০০ প্রতিটি জায়গায় লুটপাটের কারণে দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাচ্ছে : খসরু হিরো আলম নিয়ে কিছুই বলিনি, ফখরুলের মন্তব্যের জবাব দিয়েছি: কাদের তিন ফসলি জমিতে সরকারি প্রকল্পও নয়: প্রধানমন্ত্রী

সোনালী ব্যাংকের খেলাপি ঋণের অবস্থা উদ্বেগজনক: সংসদীয় কমিটি

খবরপত্র ডেস্ক:
  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২২

অনেক গ্রাহকের হদিস না পাওয়ায় রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংকের খেলাপি ঋণ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে সংসদীয় কমিটি। ঋণের বিপরীতে অনেকের জামানত নেই। ব্যাংকটির বড় খেলাপিদের থেকে বার্ষিক আদায়ের হার এক শতাংশেরও কম। গত সোমবার (২৮ নভেম্বর) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত ‘অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত’ সংসদীয় স্থায়ী কমিটির ২০তম বৈঠকে উত্থাপিত প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা যায়। কমিটি সভাপতি মো. আব্দুস শহীদের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটি সদস্য চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী, এ বি তাজুল ইসলাম, বজলুল হক হারুন, আহসান আদেলুর রহমান, ওয়াসিকা আয়শা খান ও খাদিজাতুল আনোয়ার বৈঠকে অংশ নেন। বৈঠক শেষে এ সংক্রান্ত সাব-কমিটির প্রধান ওয়াসিকা আয়শা খান বলেন, কমিটি তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। এটা নিয়ে পরবর্তীসময়ে আলোচনা করে সুপারিশ বাংলাদেশ ব্যাংককে জানানো হবে।
এদিকে, সাব-কমিটি তার প্রতিবেদনে ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপিদের দ্রুত চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ ও ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের ঋণ দেওয়ার ক্ষমতা সীমিতকরণসহ ১৪ দফা সুপারিশ করেছে। এর আগে গত বছরের ৩ জানুয়ারি সোনালী ব্যাংক, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান, ন্যাশনাল ফিন্যান্স লিমিটেড, প্রিমিয়াম লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্স লিমিটেডের খেলাপি ঋণের আর্থিক অনিয়ম যাচাই-বাছাইয়ে একটি সাব-কমিটি গঠন করা হয়।
কমিটির সদস্য ওয়াসিকা আয়শা খানকে আহ্বায়ক করে গঠিত কমিটিতে ছিলেন- আহসান আদেলুর রহমান ও খাজিদাতুল আনোয়ার। দীর্ঘ যাচাই করে কমিটি সোমবার অনুষ্ঠিত মূল কমিটির বৈঠকে এর প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, সোনালী ব্যাংকের ২০২০ সালের ডিসেম্বরে ৫ লাখ ৫০ হাজার খেলাপি ঋণ গ্রাহকের সংশ্লেষ অর্থের পরিমাণ ১৭ হাজার ৭৬২ কোটি টাকা। ডিসেম্বর ২০২১ এ খেলাপি ঋণ গ্রাহক কমে দাঁড়ায় ৩ লাখ ৭৬ হাজার। কিন্তু খেলাপি ঋণের পরিমাণ বেড়ে হয় ১৮ হাজার ৭৮৬ কোটি। এ বছর এপ্রিল পর্যন্ত খেলাপি ঋণ গ্রাহক কিছুটা বেড়ে হয় ৩ লাখ ৯৭ হাজার। আর খেলাপি ঋণ কিছুটা কমে হয় ১৮ হাজার ৭১২ কোটি। ২০২০ সালের (৬ দশমিক ২২ শতাংশ) তুলনায় ২০২১ সালে (৭ দশমিক ৫৯ শতাংশ) খেলাপি ঋণ আদায় কিছুটা বেড়েছে। ডিসেম্বরে ২০২০ সালে ১০ কোটি তদূর্ধ্ব ২৩৭ ঋণ খেলাপির সংশ্লেষ অর্থ ১১ হাজার ৫৩২ কোটি টাকা। ডিসেম্বর ২০২১ সালে খেলাপির সংখ্যা বেড়ে হয় ৩০৮। একই সঙ্গে খেলাপি ঋণের পরিমাণও বেড়ে হয় ১৩ হাজার ৪৭ কোটি টাকা। এপ্রিল ২০২২ এ খেলাপির সংখ্যা হয় ৩০৯ ও খেলাপি ঋণের পরিমাণ হয় ১২ হাজার ৮৬৫ কোটি টাকা। ব্যাংকটির মোট ঋণের বিপরীতে খেলাপি ১৬-১৭ শতাংশ। এসব খেলাপি ঋণের মধ্যে বছরে আদায়ের হার এক শতাংশেরও কম। যা মোটেও সন্তোষজনক নয়।
প্রতিবেদনে বলা হয়, বড় ঋণের বিপরীতে রক্ষিত জামানতের পরিমাণ ঋণ স্থিতির ৬০ শতাংশ, যা অপ্রতুল। ঋণ প্রদানে তথ্য যাচাই-বাছাইয়ে ঘাটতি ছিল। অন্যদিকে ছোট ঋণখেলাপিদের ক্ষেত্রে জামানত ১৫০ শতাংশের মতো। এসব খেলাপি ঋণ আদায়ের হার ৭ দশমিক ৫৯ শতাংশ। মোট ঋণ খেলাপির মধ্যে ১০ কোটি তদূর্ধ্ব সংখ্যা মাত্র শূন্য দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ। কিন্তু তাদের কাছে খেলাপি মোট খেলাপির ৬৭ শতাংশ। ব্যাংকটির ছোট খেলাপি ঋণের আদায়ের সম্ভাবনা বড় খেলাপির তুলনায় বেশি বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।
সাব-কমিটির বলেছে, ব্যাংকটির অনেক গ্রাহকদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। অনেকগুলোর ক্ষেত্রে জামানত নেই। জামানত থাকলেও বিক্রির প্রক্রিয়া জটিল। জামানতের পরিমাণ ও আদায়ের হার আপাত দৃষ্টিতে ভালো দেখালেও ব্যাংকটির খেলাপি ঋণের প্রকৃত অবস্থা যথেষ্ট উদ্বেগজনক।
সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের (এসআইবিএল) ১০ কোটি তদূর্ধ্ব ২৭ জন ঋণ খেলাপির এক হাজার ৪৪ কোটি ৪০ টাকার টাকার বিপরীতে এ বছর এপ্রিল পর্যন্ত চার মাসে কোনো আদায় নেই। এটিকে অত্যন্ত হতাশাজনক ও দুর্বল ব্যাংক ব্যবস্থাপনার পরিচায়ক বলে উল্লেখ করা হয়। এপ্রিল ২২ পর্যন্ত ৪ দশমিক ৮৬ শতাংশ ঋণ খেলাপির বিপরীতে ১০কোটি তদূর্ধ্ব ঋণ ৩ দশমিক ২৮ শতাংশ। ২০২০ সালে এসআইবিলের মোট বিনিয়োগের (ঋণ) মধ্যে শ্রেণিকৃত (খেলাপি) ঋণ এক হাজার ৬২১ কোটি টাকা। যা মোট ঋণের ৫ দশমিক ৩২ শতাংশ। ১০ কোটি তদূর্ধ্ব খেলাপিদের কাছে ব্যাংকের দায় এক হাজার ১৪৩ কোটি টাকা। যা মোট খেলাপির ৭০ শতাংশ।
এ ব্যাংকের বেশিরভাগ ঋণের অনুকূলে জামানত নেই। ব্যক্তিগত গ্যারান্টিতে ঋণ দেওয়া হয়েছে। বড় ঋণ গ্রহীতাদের খেলাপি হওয়ার প্রবণতা বেশি। ন্যাশনাল ফাইন্যান্স মোট ঋণের (৬৪৩ কোটি) ১৯ শতাংশ শ্রেণিকৃত। শ্রেণিকৃত ঋণের ১০ জন গ্রাহকের কাছে। ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তানের এপ্রিল ২২ ব্যাংকের ঋণ ও অগ্রিমের পরিমাণ এক হাজার ৩৮৬ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। এর মধ্যে ১২০ জন খেলাপি ঋণ গ্রহীতার বিপরীতে শ্রেণিকৃত ঋণ এক হাজার ৩৬৯ কোটি ৯০ লাখ টাকা। যা মোট ঋণের ৯৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ। এর মধ্যে ১০ কোটি তদূর্ধ্ব খেলাপি ৪৬জন এবং সংশ্লেষ অর্থের পরিমাণ এক হাজার ৫৬ কোটি ৬৯ লাখ টাকা।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com