সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০৪:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম ::
শেরপুরে সরিষার বাম্পার ফলন নাজিরপুরের মাহামুদকান্দা মাদ্রাসার পরিচালনা পরিষদ কমিটিতে আবারও বিনা প্রতিদন্ধিতায় সভাপতি হলেন মিজানুর রহমান দুলাল পাখি কিনেন প্রভাবশালীরা, হরিণ শিকারও বেড়েছে গোদাগাড়ীতে পুরোদমে চলছে বোরো চাষবাদ নালিতাবাড়ীর নিশ্চিন্তপুর আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ বরিশালে ৬ষ্ট ও ৭তম শ্রেণির সিলেবাস বাতিলের দাবীতে ইমাম সমিতির বিক্ষোভ সমাবেশ চকরিয়ার ফাঁসিয়াখালীতে সামাজিক বনায়নের গাছ কাটা অতঃপর জব্দ শিক্ষা যেমন ডিজিটাল হচ্ছে তেমনি শিক্ষকদেরও ডিজিটাল হতে হবে- মনোহরদীতে শিল্পমন্ত্রী হারবাংয়ে জমি দখলে নিতে অসহায় মহিলার বসতভিটা আগুনে পুড়িয়ে দিলো দূর্বৃত্তরা আলফাডাঙ্গায় শিক্ষার্থীদের মাঝে কুরআন ও সনদ বিতরণ

২০২২ সালে এরদোগানের সম্মানজনক অর্জন

মো: বজলুর রশীদ :
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ২০ জানুয়ারী, ২০২৩

২০২২ সালে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগানকে ম্যান অব দ্য ইয়ার ভূষিত করা হয়নি। যাদের বাঁচানোর জন্য রিস্ক নিয়ে এগিয়েছেন সেই ব্যক্তিত্বের নাম নেই টাইম ম্যাগাজিনে। নাম রয়েছে ইউক্রেনের জেলেনস্কির, পত্রিকা ২০২১ সালে বছরের সেরা বলেছিলেন ইলন মাস্ককে এবং ২০২০ সালে বাইডেন ও কমলা হারিসকে। মাল্টিপোলার বিশ্বব্যবস্থায় তাদের অবদান অনেক রয়েছে বলা হয়, তবে বিগত সালে এরদোগান সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন। রজার বেকার ২০২২ সালে দুনিয়ার পাঁচটি সেরা অভাবনীয় ঘটনা তুলে এনেছেন, এক নম্বরে স্থান পেয়েছে বিশ্বখাদ্য সমস্যা সমাধানে ইউক্রেনের বন্দরগুলো থেকে এরদোগানের প্রচেষ্টায় বিভিন্ন গন্তব্যে গমের জাহাজ ভাসানো, তিনি রাশিয়াকে একপ্রকার চাপ দিয়েছিলেন ইউক্রেনের সাথে এরকম একটি চুক্তি করাতে। এমন একটি পদক্ষেপ, যুক্তরাজ্য, জাতিসঙ্ঘ বা ইউরোপ কারো পক্ষে করা সম্ভব হয়নি। এই অনন্য ঘটনার জন্য, যুদ্ধ বন্ধের প্রচেষ্টার জন্য এরদোগানকে বরং নোবেল পুরস্কারের জন্য মনোনীত করা উচিত। কিন্তু পশ্চিমা মিডিয়া তুরস্ককে মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য দায়ী করেছে যেমনটি কাতার বিশ্বকাপের সাফল্যের কথা না বলে কাতারে শ্রমিকদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রচার করা হয়েছে। নিঃসন্দেহে, ২০২২ সালের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন। আঞ্চলিক এই যুদ্ধ খুব তাড়াতাড়ি বৈশ্বিক রূপ নেয়। ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্র খোলাখুলিভাবে সমর্থন জানায় এবং অস্ত্র, অর্থ ও রসদ সরবরাহ করে চলেছে এখনো। এটি আন্তর্জাতিক ব্যবস্থায় একটি বড় ধরনের ভূ-রাজনৈতিক ফাটলের সৃষ্টি করে।
কোনো সন্দেহ নেই যে ইউক্রেন ও রাশিয়া উভয়েই গত এগারো মাসে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মস্কো প্রত্যাশিত দ্রুত ফলাফল পায়নি; কিয়েভ ও খারকিভ থেকে তার জোরপূর্বক পশ্চাৎপসরণ রাশিয়ান সামরিক বাহিনীর ভাবমর্যাদা ক্ষুণ্ণ করেছে। ইউক্রেন পশ্চিমাদের কাছ থেকে প্রচুর সমর্থন পেয়ে, বিজয় অর্জনের চিন্তায় নিমগ্ন। যুদ্ধ যত এগিয়ে আসছে, পশ্চিমা ও রাশিয়ার মধ্যে মেরুকরণ শক্তি ও পারমাণবিক নিরাপত্তাসহ অনেক ক্ষেত্রেই গভীরতর হচ্ছে। আলোচ্য বছরে মার্কিন-চীন প্রতিদ্বন্দ্বিতা আরো তীব্র হয়েছে। মানবতা একটি মাল্টিপোলার ধারণায় কাজ করছে। রিয়াদ ও ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত চীন-আরব স্টেটস সামিট এবং মার্কিন-আফ্রিকা নেতাদের শীর্ষ সম্মেলনে বিশ্বের নজর আকৃষ্ট হয়েছে। এই সময়ে বেইজিং এশিয়ায় তার নিরাপত্তা স্বার্থ এবং মধ্য প্রাচ্য ও আফ্রিকায় তার বাণিজ্যিক সাম্রাজ্য রক্ষা করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ বলে মনে হয়েছে। অন্য দিকে ইউরোপ ও বিশ্বের অনেক অংশে চীনের প্রভাব নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য ওয়াশিংটন পদক্ষেপ গ্রহণ অব্যাহত রেখেছে। আরো লক্ষণীয় অনেক এশীয়, আফ্রিকান, ল্যাটিন আমেরিকান ও মধ্যপ্রাচ্যের দেশ রাশিয়ার বিরুদ্ধে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞায় যোগ দেয়নি। এভাবে পশ্চিম ও রাশিয়া বা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বিতার পক্ষ নিতে অনেক দেশ অস্বীকার করেছে। এ দিকে অনেক মাঝারি আকারের দেশ উদীয়মান বৈশ্বিক ঝুঁকির মুখোমুখি হওয়ার জন্য এবং নতুন সুযোগ গ্রহণে প্রস্তুত হওয়ায় একটি নতুন এবং ‘স্বায়ত্তশাসিত’ পররাষ্ট্রনীতি অনুসরণ করা শুরু করেছে। এনার্জি, উৎপাদন, লজিস্টিকস ও খাদ্যসঙ্কট শক্তি প্রতিযোগিতার সাথে সংযুক্ত, ‘নতুন ঠা-া যুদ্ধ’, ‘নতুন বিশ্বযুদ্ধ’ বা ‘পারমাণবিক যুদ্ধ ভীতি’র ভারেও খাদ্যমূল্য ভারাক্রান্ত এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনের অভিনেতারা এটির সাথে পক্ষ নিতে বাধ্য হয়ে পড়েছে। জাতিসঙ্ঘ ব্যবস্থাপনার দীর্ঘ দিনের সমালোচক এরদোগান এই নাজুক অবস্থায় সবাইকে অবাক করে দিয়ে বলেছিলেন, ‘একটি ন্যায্য বিশ্ব সম্ভব’, এটিকে সামনে রেখে উদ্যোগ গ্রহণ করুন, ‘উন্নয়নের মূলা হিসাবে’ ব্যবহার করবেন না। প্রেসিডেন্ট রজব তৈয়ব এরদোগান উত্তেজনা প্রশমনের জন্য রাশিয়া ও ইউক্রেনের নেতাদের মধ্যে বৈঠকের আয়োজন করার চেষ্টা করেছিলেন এবং ২০২২ সালজুড়ে কূটনৈতিক অঙ্গনে বেশ সক্রিয় ছিলেন, যা বিশ্বের অন্য কোনো নেতা করতে ব্যর্থ হয়েছেন। শস্য চুক্তি ও বন্দিবিনিময়সহ তার প্রধান অর্জনগুলো আন্তর্জাতিক মিডিয়া সম্প্রচার করেছে। যদিও তার বিরুদ্ধের প্রচারের জন্য এসব অনেক মিডিয়া আউটলেট প্রস্তুত থাকে। এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, এসব অর্জন সাম্প্রতিক বছরগুলোতে তুরস্কের একটি ‘স্বায়ত্তশাসিত’ পররাষ্ট্রনীতির প্রচেষ্টায় উদ্ভূত হয়েছিল, বাইরের কোনো প্রভাব বা ডিক্টেশন ছাড়াই।
প্রকৃতপক্ষে আঙ্কারা ইউক্রেন যুদ্ধে একটি ব্যতিক্রমী ব্যালান্স অব পাওয়ার নীতি সফলভাবে বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হয়েছে, অনেক ক্ষেত্রে যা বিদেশী সরকার ও নেতাদের ঈর্ষান্বিত করেছে। বিশেষ করে, তুরস্কের মস্কোর বিরুদ্ধে পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞায় যোগ না দিয়ে তুর্কি প্রণালীর মধ্য দিয়ে রাশিয়ান যুদ্ধজাহাজের উত্তরণ বন্ধ করে দিতে পেরেছেন। দেশটি ইউক্রেনকে সশস্ত্র ড্রোন, অস্ত্রশস্ত্র ও বিদ্যুৎ সরবরাহ করেছিল। কৃষ্ণসাগরে উল্লেখযোগ্য প্রাকৃতিক গ্যাসের মজুদ আবিষ্কৃত হওয়ার পর, তুরস্ক একটি জ্বালানি বিতরণ কেন্দ্রে পরিণত হওয়ার জন্য রাশিয়ার সাথে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার অনুসরণ করেছে।
একই সময়ে, আঙ্কারা তুর্কি রাষ্ট্রগুলোর সংগঠন, ওটিএস জোরদার করেছে এবং তুর্কমেনিস্তানের প্রাকৃতিক গ্যাস ইউরোপে পৌঁছে দেয়ার প্রচেষ্টায় অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে। এতে কোনো সন্দেহ নেই যে, তুরস্ক ইউক্রেনীয় এবং রাশিয়ানদের প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা গ্যারান্টি প্রদানের মাধ্যমে ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ করার যে কোনো প্রচেষ্টায় উল্লেখযোগ্যভাবে অবদান রাখতে প্রস্তুত আছে এবং বারবার যুদ্ধ বন্ধ ও শান্তি স্থাপনের জন্য প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। এ ক্ষেত্রে এরদোগানের শান্তি কূটনীতি তুর্কি কূটনীতিকদের মধ্যে দক্ষতার একটি নতুন ক্ষেত্র হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে। রাশিয়া ও ইউক্রেনের সাথে একযোগে যোগাযোগ বজায় রেখে ইউরোপীয় নিরাপত্তায় ইতোমধ্যেই সফল অবদান রেখেছে। তুরস্ক অন্যতম শক্তিশালী ও লাভজনক রফতানি, অস্ত্র বিক্রয় মধ্য এশিয়ায় দেশটির ভাবমর্যাদা বাড়িয়েছে। ২০২০ সালের নাগরনো-কারাবাখ যুদ্ধে আর্মেনিয়ার বিরুদ্ধে আজারবাইজান কর্তৃক রাশিয়ান সামরিক হার্ডওয়্যার ধ্বংস করার জন্য ইউক্রেন ব্যবহৃত হয়, তুরস্কের ড্রোন মধ্য এশিয়ার দেশগুলোর আগ্রহ বাড়িয়ে তুলেছে। তুর্কমেনিস্তান, তুর্কি অস্ত্রের দীর্ঘ দিনের ক্লায়েন্ট, কিরঘিজস্তানও ২০২১ সালে তুর্কি ড্রোন কিনেছিল এবং সেপ্টেম্বরে-২২ মাসে ড্রোনের জন্য নতুন ঘাঁটি স্থাপন করেছে। তাজিকিস্তান ও উজবেকিস্তান তুর্কি ড্রোন কিনছে, অন্য দিকে কাজাখস্তান তুরস্কের আঙ্কা ড্রোন অভ্যন্তরীণ উৎপাদন শুরু করতে সম্মত হয়েছে। তুরস্কের পররাষ্ট্রনীতির লক্ষ্য এবং ‘ড্রোন কূটনীতি’র সাথে চীনের সামরিক হার্ডওয়্যারের অর্থ তুরস্ক ও চীনের সম্ভাব্য যৌথ সহযোগিতা। এসসিও সদস্যদের সম্মিলিত মোট দেশজ উৎপাদন, জিডিপি বিশ্বব্যাপী জিডিপির ২৫ শতাংশ। তুর্কি পররাষ্ট্রনীতি চলমান বিশ্বের রূপান্তরের সাথে সম্পর্ক রেখে দেশ স্বাভাবিকীকরণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। আলোচ্য বছরের শুরুর দিকে তুরস্ক সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব ও ইসরাইলের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করেন। এটি মিসর ও সিরিয়ার সাথেও সম্পর্ক স্বাভাবিকীকরণের কাজ শুরু করেছে। ইউক্রেন সঙ্কটেও এই পদক্ষেপ ভূমিকা রাখবে বলে তুরস্ক মনে করে।
আঙ্কারা ও মস্কো ২০১৫ সাল থেকে একযোগে সহযোগিতা ও প্রতিযোগিতা করতে সক্ষম হয়েছে। সিরিয়া, লিবিয়া ও নাগরনো-কারাবাখ-এ একে অপরের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার পর, উভয় সরকার শক্তি বিষয়ে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা অনুসরণ করেছে। বর্তমানে তারা এই সম্পর্ককে সিরিয়ায় এক নতুন উচ্চতায় নিয়ে গেছে।
ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে চাপে থাকা রাশিয়া যদি সফলভাবে সিরিয়ার বাশার আসাদ সরকারকে কূটনীতিতে জড়িত হতে প্ররোচিত করে তবে সিরিয়ার পরিস্থিতি ব্যাপকভাবে পরিবর্তিত হতে পারে। স্পষ্টতই এ ধরনের পরিবর্তন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে সিরিয়ার প্রতি তার নীতি সংশোধন করতে বাধ্য করার জন্য যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে এবং ওয়াইপিজি, পিকেকে সন্ত্রাসী সংগঠনের সিরীয় সম্পৃক্ততা নিয়ে নতুন মাত্রা দেখা দিতে পারে।
সংক্ষেপে বলতে গেলে, ২০২২ সালে তুরস্ক তিনটি গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রে নিজেকে পৃথকভাবে প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছিল। ১. রাশিয়া-ইউক্রেন সঙ্কটের মধ্যে একটি সুষমনীতি গ্রহণ করে এবং সক্রিয় কূটনীতিতে জড়িত হয়ে তার বৈশ্বিক অবস্থান সুসংহত করে। ২. সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব ইসরাইলের সাথে তার সম্পর্ক স্বাভাবিক করার মাধ্যমে তার আঞ্চলিক প্রভাবকে আরো শক্তিশালী করেছে। ৩. তুর্কি রাষ্ট্র সংগঠন কাঠামোর মাধ্যমে ককেশাস এবং মধ্য এশিয়ায় সক্রিয় হয়ে ওঠে। এই ঘটনাগুলো কৃষ্ণসাগর, ককেশাস, বলকান এবং উত্তর আফ্রিকায় স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা সরবরাহকারী হিসেবে তুরস্কের বড় এক উত্থান।
কেউই অস্বীকার করতে পারবে না যে তুর্কিই তার চিরকালীন প্রতিপক্ষসহ সবার সম্মান অর্জন করেছে, বিচক্ষণ ও শান্ত অবস্থানের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক সঙ্কটে শান্তি ও সংযমের পক্ষে পদচারণা করেছে। আঙ্কারা সফলভাবে মেক্সিকো, ইন্দোনেশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, তুর্কি ও অস্ট্রেলিয়ার একটি গ্রুপিং, তুর্কি স্টেটস অর্গানাইজেশন এবং মিকেটিএ-এর প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেছে।
২০২২ সালে সৌরবিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে মোট ২.৭ বিলিয়ন কিলোওয়াট এবং বায়ু খামার থেকে ৪.২ বিলিয়ন কিলোওয়াটেরও বেশি রেকর্ড উৎপাদন করেছে, দেশে মোট বিদ্যুৎ ইনস্টল করার ক্ষমতা ১০০,০০০ মেগাওয়াট অতিক্রম করেছে। ২০২২ সালের প্রথম ১১ মাসে তুর্কিয়ের রফতানির পরিমাণ ছিল ২৩১ বিলিয়ন ডলার, আঙ্কারা ও আফ্রিকার মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ ৪০ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে।
তুর্কিইয়ের বিরুদ্ধে ৩৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে চলা সন্ত্রাসী অভিযানে, পিকেকে- তুর্কি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইইউ দ্বারা একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত- নারী, শিশু এবং শিশুসহ ৪০ হাজারেরও বেশি লোকের মৃত্যুর জন্য দায়ী। ওয়াইপিজি হচ্ছে এর সিরীয় শাখা।
১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর আঙ্কারা মধ্য এশিয়ার দেশগুলোর সাথে সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক বৃদ্ধির জন্য তুর্কি সহযোগিতা ও সমন্বয় সংস্থা গঠন করে। কয়েক দশক পরে, ২০০৯ সালে, তুর্কি ভাষাভাষী রাষ্ট্রগুলোর সহযোগিতা পরিষদ, তুর্কি কাউন্সিল, আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ২০২১ সালে কাউন্সিল নিজেকে তুর্কি রাষ্ট্রগুলোর সংগঠন হিসাবে নামকরণ করার সিদ্ধান্ত নেয়। আজারবাইজান, কাজাখস্তান, কিরগিজস্তান, তুরস্ক, উজবেকিস্তান এবং দু’টি পর্যবেক্ষক রাষ্ট্র, হাঙ্গেরি ও তুর্কমেনিস্তান নিয়ে গঠিত পাঁচটি সদস্য নিয়ে গঠিত। সংস্থাটির অংশগ্রহণকারী রাষ্ট্রগুলো প্রায় ১৭০ মিলিয়ন মানুষ এবং ১.৫ ট্রিলিয়ন ডলারের সম্মিলিত জিডিপির আবাসস্থল হয় তুর্কি কাউন্সিল। এদের সম্মিলিত বাণিজ্যের পরিমাণ ২৬ বিলিয়ন ডলার।
বৃহত্তর আঞ্চলিক সংযোগ এবং অর্থনৈতিক সহযোগিতার জন্য মধ্য এশিয়া ও চীনের সাথে আরো বেশি সম্পৃক্ততার জন্য আঙ্কারার চাপের অংশ হিসেবে, তুরস্কের লক্ষ্য রাশিয়ার মধ্য দিয়ে চলাচলকারী ব্যক্তিদের জন্য কার্যকর বিকল্প রুট স্থাপন করা। যদিও নতুন বাণিজ্য রুট তৈরি এবং মধ্য এশিয়ায় বৃহত্তর তুর্কি আগ্রহ তুরস্কের অভ্যন্তরীণ শক্তির চাহিদা দ্বারা কিছুটা হলেও প্রভাবিত হয়, তবে এটি এই অঞ্চলে আঙ্কারার সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক প্রসারের ওপরও নির্ভর করে। ইউক্রেনের সাথে রাশিয়ার যুদ্ধে, তুরস্ক তার বৈশ্বিক উচ্চাকাঙ্ক্ষা এবং পররাষ্ট্রনীতির লক্ষ্যগুলোকে শক্তিশালী করছে, এশিয়া, ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের মধ্যে একটি মূল ‘সংযোগকারী’ হিসেবে নিজেকে অবস্থান করছে।
মধ্য এশিয়ার দেশগুলোর জন্য, ইউরোপীয় শক্তি হিসেবে তুরস্কের উত্থানের ফলে এই অঞ্চলের বিভিন্ন দেশের মধ্যে পণ্য ও মানুষ পরিবহনের মাধ্যমে নতুন বাণিজ্যের সুযোগ এবং আঞ্চলিক সংযোগের সৃষ্টি হতে চলেছে। একই সময়ে, তুরস্কের জড়িত থাকার ফলে রাশিয়ার সম্পৃক্ততা ছাড়াই মধ্য এশিয়ার দেশগুলো এবং চীনের জন্য ইউরোপীয় ও বৈশ্বিক বাজারে আরো বেশি অ্যাক্সেস করতে সক্ষম হয়। মধ্য এশিয়ার দেশগুলো রাশিয়া ও চীনের কাছ থেকে স্বাধীন হয়ে নিজেদের স্বার্থ সুরক্ষিত করার জন্য এই সুযোগের সদ্ব্যবহার করে এটিকে আরো পুঁজি করতে পারে। তবে তুরস্ক থেকে ড্রোনের ক্রমবর্ধমান ব্যবহার মধ্য এশিয়ার দেশগুলো, বিশেষ করে কিরগিজস্তান ও তাজিকিস্তানের মধ্যে বিরোধ ও উত্তেজনা বেড়ে গেছে। এই বৃহত্তর প্রেক্ষাপটেই বিশ্বের মঞ্চে ভূ-রাজনৈতিক শক্তি বৃদ্ধির জন্য তুরস্কের অনুসন্ধানকে স্থান দেয়া যেতে পারে। এ বছরের এসসিও শীর্ষ সম্মেলনের পর এরদোগানের ঘোষণা থেকে বোঝা যায় যে, আঙ্কারা জোটনিরপেক্ষ পররাষ্ট্রনীতির লক্ষ্যগুলো অনুসরণ করতে পারে এবং করতে চায়, যা ন্যাটোর পক্ষে সম্ভব নয়। এই প্রচেষ্টা কতটা কার্যকর হবে তা এখনো দেখার বিষয়। লেখক : অবসরপ্রাপ্ত যুগ্মসচিব ও গ্রন্থকার




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com