রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৮ অপরাহ্ন

ফ্রান্সের নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আজ

খবরপত্র ডেস্ক:
  • আপডেট সময় শনিবার, ৬ জুলাই, ২০২৪

ফ্রান্সের নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আজ রোববার । চূড়ান্ত ভোটের আগে গতকাল শনিবার ফ্রান্সের উত্তেজনাপূর্ণ নির্বাচনী প্রচারণা স্থগিত রয়েছে। তবে ভোট শুরু হওয়ার আগেই ফলাফল নিয়ে সব পক্ষের চিন্তাভাবনাগুলো উদ্বেগ ও অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে মোড় নিচ্ছে।
রোববারের দ্বিতীয় রাউন্ড রানঅফের আগে গতানুগতিক চূড়ান্ত দিনের বিরতি বিশ্বশক্তি এবং ইইউ’র স্তম্ভ ফ্রান্সে অচলাবস্থা এবং স্থবিরতার আশঙ্কা প্রশমিত করতে কোন ভূমিকা রাখছে না। শুক্রবারের চূড়ান্ত জনমত জরিপে দেখা যায়, উগ্র ডানপন্থী নেতা মেরিন লে পেনের ন্যাশনাল র‌্যালি (আরএন) জাতীয় পরিষদে সম্পূর্ণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জনে ব্যর্থ হবে। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর তার মধ্যপন্থী পথ এবং বাম ও ডানের চরমপন্থার মধ্যে একটি পছন্দ করতে বাধ্য করার জন্য আগাম নির্বাচনের আহ্বানের পাতানো খেলা কোন ফল দেয়নি।
তিনি এখন তার প্রেসিডেন্টের শেষ তিন বছরের মুখোমুখি হচ্ছেন কোন স্পষ্ট শাসক সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছাড়াই এবং প্রধানমন্ত্রী গ্যাব্রিয়েল আটাল সম্ভবত একটি তত্ত্বাবধায়ক সরকারকে একসাথে রাখার চেষ্টা করছেন।
বহুপাক্ষিক সংস্থা ইপসোস ও ইফপ এর জরিপে বলা হয়,অভিবাসন বিরোধীদের মতে, ইউরোসেপ্টিক আরএন ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে ১৭০ থেকে ২১০ আসন পেতে পারে যা নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য ২৮৯টি আসর থেকে যথেষ্ট কম।
লে মন্ডে, রেডিও ফ্রান্স এবং ফ্রান্স টেলিভিশনের জন্য ইপসোস-তালান (সংস্থা) ভোটের জরিপে আএন ১৪৫ থেকে ১৭৫ আসন পেয়ে বামপন্থী জোট নিউ পপুলার ফ্রন্টের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে।
অতি-ডান এবং বামপন্থী উভয় দলই বিদায়ী পার্লামেন্টে ২৫০টি আসন দখলকারী ম্যাক্রোঁর মধ্যপন্থী মিত্রদের জন্য আনুমানিক ১১৮ থেকে ১৪৮ আসনে এগিয়ে রয়েছে।
কে সরকার গঠন করতে এবং নেতৃত্ব দিতে সক্ষম হতে পারে এই বিষয়ে কোন ধারণা ছাড়াই ফরাসি ভোটাররা রোববার রাতে ঘুমাতে যেতে পারেন।
লে পেন জোর দিয়েছিলেন যে, তিনি এখনও জয়ের পথে রয়েছেন এবং নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবেন। এর ফলে ম্যাক্রোঁকে সরে যেতে হবে এবং লে পেন-এর ২৮ বছর বয়সী সহকর্মী ও আরএন পার্টির সভাপতি জর্ডান বারডেলাকে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগ করতে বাধ্য করবে।
বারডেলা বৃহস্পতিবার সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ‘হয় আরএন নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা জিতবে এবং আমি, রোববার থেকে, পুনর্গঠনের জন্য আমার প্রকল্প শুরু করতে পারব নতুবা দেশ অবরুদ্ধ হয়ে যাবে।’
ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী গাব্রিয়েল অ্যাটল তার অংশের জন্য তত্ত্বাবধায়ক ভূমিকায় ‘যতদিন প্রয়োজন ততদিন’ থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন, যদিও ম্যাক্রোঁর অফিস কী ধরণের সরকার বজায় রাখা যায় তার বিকল্পগুলো পর্যালোচনা করছে।
ম্যাক্রোঁ ২০২৭ সালের এপ্রিল পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট এবং আইনসভা নির্বাচন পর্যন্ত পদে থাকবেন। তবে তাঁকে এখন রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের সাথে ক্ষমতা ভাগ করে নেওয়ার সম্ভাবনার মুখোমুখি হতে হবে।
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ফ্রান্সের প্রথম উগ্র-ডানপন্থী সরকার গঠনের সম্ভাবনা তার ইউরোপীয় মিত্রদের হতাশ করেছে। ইতোমধ্যেই একটি আগাম জরিপে ম্যাক্রোঁ তার বেপরোয়া জুয়ায় বিভ্রান্ত।
পোলিং সংস্থাগুলো এখন ভবিষ্যদ্বাণী করেছে, যদি আরএন এর আসন কম হয়। প্যারিস অলিম্পিক গেমস আয়োজনের জন্য প্রস্তুত হওয়ার সাথে সাথে ফ্রান্স অজানা রাজনৈতিক পরিস্থিতির দিকে গড়াবে।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com