রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৩৪ অপরাহ্ন




হাফেজ নূরুল ইসলাম বাচ্চুর ইন্তেকাল

মো. সেলিম হোসেন, গোপালপুর-টাঙ্গাইল:
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২১




টাঙ্গাইলের গোপালপুরে কোরআনের পাখি খ্যাত নবগ্রাম দাখিল মাদ্রাসার সহকারি শিক্ষক আলহাজ হাফেজ নূরুল ইসলাম বাচ্চু ইন্তেকাল করেছেন। তিনি হেপাটাইটিস বি ভাইরাস রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) সন্ধ্যা ৭টার দিকে নবগ্রাম নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন, ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৪৮ বছর। আলমনগর ইউনিয়নের এক নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার মৃত ফয়েজ উদ্দিনের ছোট ছেলে নূরুল ইসলাম বাচ্চু ছিলেন একাধারে ইমাম, শিক্ষক, কাজী, ইসলামিক সুবক্তা, হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ও সমাজসেবক। তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে, ১ মেয়েসহ অসংখ্য আত্বীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে যান। তাঁর মৃত্যুতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। স্থানীয়রা জানান, আমাদের এলাকার অধিকাংশ ধর্মীয় সভায় সভাপতি হিসাবে তিনি থাকতেন। কোরান-হাদীসের উপর তাঁর আলোচনা শোনার জন্য দূর-দূরান্ত থেকে লোকজন এসে সভায় ভীর করতেন। তাঁকে ছাড়া সমাজে ধর্মীয় কোনো অনুষ্ঠান হতোনা। গ্রামের প্রতিটি মানুষের কাছে তিনি ছিলেন একজন সৎ, বিশ্বস্ত, ধার্মিক ও পরোপকারি ব্যক্তি। তিনি ও তাঁর স্ত্রী শাহ্নাজ সারাজীবন কোরান-সুন্নাহর আলোকে জীবনযাপন করেছেন। তাঁদের দুই সন্তান ইমরান হোসেন ও আবু ইউসুফ নূরীকে কোরানের হাফেজ বানিয়েছেন। একমাত্র মেয়ে তানহাকে দ্বীনি শিক্ষার জন্য মাদ্রাসায় পড়াচ্ছেন। নবগ্রাম দাখিল মাদ্রাসার সুপার মাওলানা হাফিজুর রহমান জানান, হাফেজ নূরুল ইসলাম বাচ্চু ছিলেন দ্বীনি শিক্ষার অগ্রদূত। সকল ছাত্র-ছাত্রীকে কোরআন-হাদীসের আলোকে জীবনযাপন করার সুশিক্ষা দিয়ে মাদ্রাসার ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করেছেন। প্রতিষ্ঠান পরিচালনা পরিষদের শিক্ষক প্রতিনিধি পদে বারবার তিনিই নির্বাচিত হতেন। তাঁর সততা, কর্মদক্ষতা, শিক্ষাদান পদ্ধতি, সদাচরণ ও উত্তম চরিত্র দিয়ে সহজেই সকলের মন জয় করতেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার নাজনীন সুলতানা তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান। উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. পারভেজ মল্লিক মরহুমের বিদেহী আত্মার শান্তি ও মাগফেরাত কামনাসহ শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা ও সহমর্মিতা জ্ঞাপন করেন। শুক্রবার সকাল ১০টায় নবগ্রাম দাখিল মাদ্রাসা মাঠে মরহুমের জানাজা নামাজ শেষে সামাজিক কবরস্থানে তাঁর মরদেহ দাফন করা হয়। এসময় বড় ছেলের ইমামতিতে পিতার জানাজায় হাজারো মানুষের ঢল নামে। পরে, জুমআর নামাজ শেষে মসজিদে মসজিদে তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com