বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৫:১৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম ::
রামগতির মেঘনায় ধরা পড়ছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ, জেলেদের মুখে হাসি গঙ্গাচড়ায় বিলীন হওয়ার পথে শিমুল গাছ কঠোর লকডাউনের মধ্যেও বরিশালের লাহারহাটে প্রশাসনের চোখের সামনেই চলছে অবৈধ স্পিডবোট মৌলভীবাজারে গত ২৪ ঘন্টায় সর্বোচ্চ আরও ২২৫ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের রেকর্ড ‘অক্সিজেন এক্সপ্রেস’ ট্রেন থেকে ভারতীয় তরল মেডিকেল অক্সিজেন খালাস করে সড়ক পথে নেয়া হচ্ছে সেন্ট্রাল অক্সিজেন প্লান্টে ফেনী সদর উপজেলা ও পৌর বিএনপির উদ্যোগে করোনা ভ্যাকসিন রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রমের উদ্বোধন ‘জয়যুগান্তর পত্রিকার অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান অনুকরণীয়’ যুবলীগ নেতা বক্করের উদ্যোগে আলাউদ্দিন নাসিমের সুস্থতা কামনায় সালাতুন নারিয়া খতম দুর্গাপুরে কমরেড মণি সিংহের ১২০তম জন্মজয়ন্তী পালিত কমলনগর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সেবা ব্যাহত, ৫২ পদের মধ্যে ৩০ টি শূন্য




জামালপুরে করোনায় মারা যাওয়া দুই পুলিশ পরিবারের সাথে এসপির মত বিনিময়, আর্থিক অনুদান প্রদান

এম এ কাশেম জামালপুর :
  • আপডেট সময় সোমবার, ২১ জুন, ২০২১




করোনা মহামারীতে নিহত দুজন পুলিশ সদস্যের পরিবারের সাথে মত বিনিয়ম ও তাদের আর্থিক অনুদান প্রদান করেছেন জামালপুর জেলা পুলিশ সুপার নাছির উদ্দিন আহমেদ। রোববার সন্ধ্যায় নিজ কার্যালয়ে এ মত বিনিময় ও আর্থিক অনুদান প্রদান করেন তিনি। কোভিট-১৯ মহামারীতে গেল বছর প্রাণ হারান জামালপুর সদরের মেষ্টা ইউনিয়নের পুলিশের উপ পরিদর্শক সুলতান আরেফিন হীরা ও মেলান্দহ উপজেলার ঝাউগড়া ইউনিয়নের পুলিশ সদস্য আশেক মাহমুদ। তাদের বর্তমান পারিবারিক অবস্থা, ছেলে-মেয়েদের পড়াশুনাসহ যাবতীয় খোঁজ খবর নেওয়ার জন্য রোববার দুপুরে জামালপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে আমন্ত্রণ জানান মানবিক পুলিশ সুপার নাছির উদ্দিন আহমেদ। পরে তিনি তাদের সাথে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মত বিনিময় করেন এবং দুটি পরিবারকে নগদ ২০ হাজার করে আর্থিক অনুদান প্রদান করেন। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সীমা রানী সরকার উপস্থিত ছিলেন। পুলিশের উপ পরিদর্শক সুলতান আরেফিন হীরা স্ত্রী মরোয়ারা বেগম বলেন, পুলিশ সুপার নাছির উদ্দিন আহমেদ স্যার আমাদেরকে ডেকে নিয়ে ছেলে মেয়েদের লেখাপড়া সহ পরিবারের সবার খোঁজ খবর নেন এবং বিশ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য করেন। পুলিশ সদস্য আশেক মাহমুদ স্ত্রী মমতাজ আক্তার সুমী বলেন –জামালপুরে এস পি স্যার খুব মনের ভালো মানুষ, আমাদেরকে ডেকে নিয়ে বলেন আমরা কোন আছি, ছেলে মেয়ে লেখাপড়া কোন চলছে বিভিন্ন বিষয়ে নিয়ে কথা বলেন তিনি এবং বেশি হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা করেন। এ সময় মমতাজ আক্তার সুমী আরও বলেন-ছেলের জন্য যদি একটি পুলিশের চাকরীর ব্যবস্থা করে দিতেন তাহলে ভালো হতো। তার বাবার খুব ইচ্ছে ছিলো ছেলে বড় হয়ে পুলিশ অফিস্যার হবে। পুলিশ সুপার নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেন, মানবিকতা হলো সবার উপর। আমি যতদিন বেঁচে থাকবো সাধ্যমত সকলের পাশে থেকে সহযোগীতা করে যাবো।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com