মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম ::
মুন্সীগঞ্জে শত বছরের পুকুর ছাড়পত্র ছাড়াই ভরাট ॥ অধিদপ্তরে লিখিত অভিযোগ শাহজাদপুরে বিনা নোটিশে কোর্টের নির্দেশে বসত বাড়ি উচ্ছেদ ঃ প্রায় ৫০ লাখ টাকার ক্ষতি গলাচিপায় প্রশাসনিক ভাবে বঙ্গমাতার জন্ম-বার্ষিকি আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ যুবলীগ নেতার মানবিকতায় ঘর পেলেন গৃহহীন জুলেখা বেগম জামালপুরে নানা আয়োজনে মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহের শেষ দিন পালিত বান্দরবান সেনা রিজিয়ন কর্তৃক সাংবাদিক সম্মেলন ও মতবিনিময় সভা বদলগাছীতে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন জলঢাকায় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব-এঁর ৯২তম জন্মদিন পালিত রাস্তা-ড্রেন এর সংস্কার ও যানজট নিরসনের দাবীতে বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত নগরকান্দায় বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব এর ৯২তম জন্মবার্ষিকী পালিত

পিএইচডি ডিগ্রি সম্পর্কে কিছু কথা

ড. অজয় কান্তি মন্ডল
  • আপডেট সময় শুক্রবার, ৫ আগস্ট, ২০২২

পিএইচডি বা ডক্টরেট ডিগ্রি একজন গবেষকের জীবনে অনেক বেশি সম্মান বা গৌরবের বিষয়। নিজেকে দক্ষ গবেষক হিসেবে গড়ে তোলা বা নিজের হাতে গবেষণা পরিচালনা করার সক্ষমতা অর্জন করতে হলে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনের কোনো বিকল্প নেই। পিএইচডি পর্যায়ে একজন শিক্ষার্থী একটি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যার আনকোরা কোনো সমাধান বের করে বা সম্পূর্ণ নতুন কোনো বিশ্লেষণ দেয়। নিয়মিত গবেষণার মাধ্যমে সমস্যাটির ধাপে ধাপে সমাধান করে এবং বিভিন্ন কনফারেন্স কিংবা খ্যাতিমান জার্নালে নিয়মিতভাবে গবেষণা প্রবন্ধ প্রকাশ করে তবেই তিনি একজন দক্ষ গবেষক হিসেবে গড়ে ওঠেন। এই ডিগ্রি অর্জন করতে গিয়ে একজন শিক্ষার্থীকে যে কঠিন ত্যাগ ও অধ্যবসায় করা লাগে সেটা আজীবন ডিগ্রিধারীর মনে গেঁথে থাকে। আজকের লেখনীতে আমার অভিজ্ঞতায় পিএইচডির কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোকপাত করব।
পিএইচডি শুরু করার আগে সবার মনে নানা ধরনের প্রশ্নের উঁকি দেয়। মনের ভিতর শুরু হয় বিভিন্ন ধরনের কৌতূহল। অজানাকে জানার উদ্দেশ্যে অনেকে দিক-বিদিক ছুটতে থাকে। তাই পিএইচডি শুরু করার আগে বেশ কিছু বিষয় মাথায় নিয়ে এগুনোই বুদ্ধির কাজ। প্রথমে যে বিষয়টি মাথায় আসে সেটি হচ্ছে, পিএইচডিকালীন কাজের চাপ কেমন হবে সেটা নিয়ে অনেকের বিস্ময় জাগে। তবে এক্ষেত্রে গবেষণার বিষয়ের উপর কাজের চাপ নির্ভর করে। যেমন, পলিটিক্যাল সাইন্স ও কেমিস্ট্রি, দুইটিতে গবেষণা ও কাজের চাপ সম্পূর্ণ ভিন্নধর্মী। স্থান, কাল, পরিবেশ ও সংস্কৃতির উপর কাজের চাপ অনেকাংশে নির্ভর করে। যেমন, চীন, জাপানে কাজ বেশি করতেই হবে। কারণ, সেখানকার সংস্কৃতিটাই সেভাবে গড়ে উঠেছে। আবার পিএইচডি সুপাভাইজারের ও ইনস্টিটিউটের ওপর নির্ভর করেও কাজের চাপ কখনো কখনো ভিন্ন হয়। আমেরিকায়ও কাজের চাপ অনেক। আবার ইউরোপে কাজের চাপ তুলনামূলক কম। তবে যে দেশই হোক না কেন, সেখানকার ল্যাবের পরিবেশ দেখে একজন শিক্ষার্থী নিজেই মাইন্ড সেট আপ করে ফেলতে পারবে সপ্তাহে তার কতটুকু কাজ করা প্রয়োজন। যখন কেউ দেখবে আশপাশের সবাই ১২ ঘণ্টা কাজ করছে সেখানে কেউ ৮ ঘণ্টা কাজ করে নিজেই নিরাপত্তাহীনতায় ভুগবে। সেজন্য অবস্থা বুঝে ব্যবস্থা নেওয়াটাই সর্বোত্তম। এক্ষেত্রে বলে রাখা ভালো, পিএইচডি প্রপোজালের সাথে প্রথমে প্রতিটি এক্সপেরিমেন্ট তথা পুরো পিএইচডি’র সময়ের একটি টাইম লাইনের ছক উল্লেখ করা লাগে। যদিও এই ছক অনুযায়ী যাওয়াটা সম্ভবপর হয়ে ওঠে না। তারপরেও সকলের চেষ্টা করা উচিত সময়ের ভিতরে সুপারভাইজারকে খুশি করে ডিগ্রির মিনিমাম রিকোয়ারমেন্ট যত দ্রুত সম্ভব অর্জন করা।
ফান্ড ছাড়া কিন্তু পিএইচডি স্ট্যাডি একটু হলেও অসম্ভব। তাই সবসময় স্কলারশিপ বা ফেলোশিপ নিয়েই পিএইচডি করার জন্য পা বাড়ানো উচিত। এ উদ্দেশে দেশে বা দেশের বাইরে বহু ফান্ড আছে। খুব সহজেই এসব ফান্ড থেকে নিজের গবেষণা কাজের ফান্ড পাওয়া যায়। বাইরের দেশে পিএইচডি করতে হলে সবার আগে নিজের যাবতীয় তথ্য (নিজের একাডেমিক ও রিসার্চ প্রোফাইলকে হাইলাইট করে) দিয়ে একটি বায়োডাটা তৈরি করতে হবে। বায়োডাটার সাথে একটা রিসার্চ প্লান দিলে খুব ভালো হয়। রিসার্চ প্লান সুপারভাইজারের গবেষণার ব্যাকগ্রাউন্ডের সাথে সামঞ্জস্য হওয়া বাঞ্ছনীয়। কীভাবে ভালো মানের বায়োডাটা ও রিসার্চ প্লান লিখতে হবে সে বিষয়ে ইন্টারনেটে বহু নমুনা আছে। অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে বাধ্যতামূলকভাবে রিসার্চ প্লান জমা দেওয়ার নিয়ম আছে। তাই রিসার্চ প্লানের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনায় রাখা যুক্তিযুক্ত। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রফেসরদের প্রোফাইল ঘেঁটে নিজের পছন্দসই গবেষণার ক্ষেত্র দেখে প্রফেসরদের যথাযথ সম্ভাষণ দিয়ে লিখতে হবে। তবে অবশ্যই সেসব বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি আবেদনকারীর যোগ্যতা আগে ভালোভাবে দেখে নিতে হবে এবং নিজের যোগ্যতার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ ক্ষেত্রে প্রফেসরদের ই-মেইলে আবেদন করতে হবে। সুপারভাইজার কনফার্ম, ফান্ড কনফার্ম, গবেষণার ক্ষেত্র কনফার্ম হওয়ার পর ভিসা কনফার্ম হতে হবে। অতঃপর সবকিছু গোছ গাছ করে বিদেশে পাড়ি দিতে হবে। এক্ষেত্রে যে দেশে পাড়ি দিতে হবে আগে থেকেই সেই দেশের নিয়ম নীতি, খাদ্যাভ্যাস, আবহাওয়া ইত্যাদি বিষয়াদি জেনে যতটুকু পারা যায় পূর্বপ্রস্তুতি নিতে হবে। দেশ ত্যাগ করার আগে অবশ্যই মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে সকল প্রতিকূলতা পাড়ি দেওয়ার। বিদেশ পৌঁছে ভালো মন্দ দু’টো অনুভূতিই মনকে পুলোকিত ও শিউরে তুলবে। বিদেশ সবার কাছে একটু হলেও ভিন্ন অনুভূতির। একদিকে যেমন, দেশের প্রিয় মানুষদের ছেড়ে অনেকটা অজানার উদ্দেশ্যে পাড়ি দিয়ে সম্পূর্ণ নতুন পরিবেশে নিজেকে খাপ খাওয়ানো বেশ দুরহ। ঠিক তেমনই নতুন দেশ, নতুন আবহাওয়া, নতুন স্থান, নতুন খাবার, নতুন মানুষ, সবকিছু একটু উলট-পালট মনে হবে। সেটাই স্বাভাবিক! এসব বিষয় একজনের পক্ষে একসাথে সামাল দেওয়া একরকম চ্যালেঞ্জের বিষয়। কেননা, পরিবার-পরিজন ছেড়ে যখন দেশের সীমানা পার হতে হয় ঠিক তখনই অনুভত হয় দেশের টান, মাটি ও মানুষের টান। মনে পড়ে দেশীয় খাবারের স্বাদ, দেশীয় ভাষার টান, সর্বোপরি দেশীয় মানুষের সঙ্গ। এজন্য নতুন পরিবেশে খাপ খাইয়ে নেওয়ার জন্য সবাইকে এই সময় মনের বিরুদ্ধে বেশ যুদ্ধ করা লাগতে পারে। তবে নিজের সিদ্ধান্তে অটল থাকলে আস্তে আস্তে সবকিছু স্বাভাবিক হয়ে যায়। এই পরিস্থিতিকে খুব সহজে মোকাবেলা করতে সেখানকার দেশি ও বিদেশি বন্ধুদের সাথে বেশি বেশি সময় কাটানো দরকার। শেয়ারিং ইজ কেয়ারিং। নিজের গন্ডির ভিতর সীমাবদ্ধ না রেখে সমস্যাগুলো বন্ধুদের ভিতর নির্দ্বিধায় খুলে বলতে হবে। তাহলে নিশ্চয়ই ভালো ফল দেবে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পিএইচডি শুরুর আগে কোর্স ওয়ার্ক থাকে। অনেক দেশে পিএইচডি শুরু করার আগে মাস্টার্স করা লাগে। এই সময়টা তাত্ত্বিক পড়ালেখা, পরীক্ষা, অ্যাসাইনমেন্ট, প্রেজেন্টেশন বা অন্য শিক্ষার্থীদের ক্লাস নেওয়ার মতো বেশ কিছু কাজ করতে হয়। এই কোর্সওয়ার্কের ভিতর দিয়েই পিএইচডি’র হাতেখড়ি শুরু হয়। ৬ মাস বা ১ বছর বা ২ বছর (বিভিন্ন দেশে ভিন্নতা আছে) কোর্সওয়ার্কের ভিতর ক্রেডিট আউয়ার, ক্রেডিট পয়েন্ট, পাশ-ফেল ইত্যাদি ইন্ডিকেটর থাকে। এগুলো নির্ধারিত সময়ের ভিতর শেষ করে পরবর্তী ধাপের জন্য প্রার্থীকে উপযোগী করে তুলতে হয়। আবার ওই সময়ের ভিতর নিজের গবেষণার প্লান বা রিসার্চ প্রপোজাল বা ওপেনিং রিপোর্ট তৈরি করতে হয়। এই প্রোপোজাল পিএইচডি এডমিশনের সময়ে লেখা বা জমা দেওয়া প্রোপোজালের থেকে ভিন্ন বা একই হতে পারে। তবে পিএইচডি’র গবেষণা শুরুতে এটি খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা অংশ। কেননা আমেরিকায় বা ইউরোপের অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে এটাকে বলে ক্যান্ডেডেন্সি পরীক্ষা। এই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়াটা বেশ দুরহ। এ সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের গঠিত এক্সপার্ট কমিটির (যেখানে এক্সটারনাল এক্সপার্টও থাকবে) সামনে শিক্ষার্থীকে নিজের ভবিষ্যৎ গবেষণার ডিটেলস আউটলাইন উপস্থাপন করতে হয়। সেখানে শিক্ষার্থীকে অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ কোনো সমস্যা নিরূপণ করে কেন এই গবেষণার ক্ষেত্র বেছে নিয়েছে তার উপর হাইপোথিসিস এবং নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সমস্যা সমাধানের টাইমলাইন দিতে হয়। যার জন্য প্রার্থীর সাজানো ওয়ার্ক প্লানের পক্ষে বিপক্ষে সুগভীর জ্ঞান থাকা বাঞ্ছনীয়। এক্সপার্ট কমিটি এসব হাইপোথিসিসের সত্যতা যাচাই করার জন্য বিভিন্ন প্রশ্ন উত্থাপন করে থাকেন। এসব প্রশ্নের যথাযথ উত্তর দেওয়ার পরেই এক্সপার্ট কমিটি সিদ্ধান্ত নেয় শিক্ষার্থীর পরবর্তী ধাপে যাওয়ার উপযোগী কি না! এই বিষয়গুলো অতটা কঠিন না। নিজের গবেষণা সম্পর্কিত সাম্প্রতিক কিছু পাব্লিকেশন বের করে সেখান থেকে নিজের মেধা খাটিয়ে নিজের মতো করে ওয়ার্ক প্লান বা রিসার্চ প্রপোজাল সজানো যায়। পরীক্ষা নিরীক্ষার জন্য নিজের ল্যাবে যেসব সুযোগ সুবিধা/ইন্সট্রুমেন্ট আছে সেই সক্ষমতার কথা চিন্তা করেই কোনো গুরুত্বপূর্ণ সমধান একটি আনকোরা সমাধান নিয়েই এই প্রোপোজাল লিখলে সবচাইতে ভালো হয়। সাম্প্রতিক বিশ্বের সাথে তাল রেখে একমাত্র ক্রিয়েটিভ থিঙ্কিং এক্ষেত্রে ভালো ফল দেবে। তবে এক্ষেত্রে প্রচুর পড়ালেখা করতে হয়। এই পড়ালেখার ভিতরেও প্রার্থীকে একঘেয়ামি লাগতে পারে। রিসার্চ প্রোপজাল লিখতে গিয়ে পিএইচডি টপিকের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য গবেষকদের সাম্প্রতিক প্রকাশিত প্রচুর গবেষণাপত্র পড়া লাগে।
এসব গবেষণা পড়তে গিয়েও প্রথম প্রথম বেশ বিরক্তি লাগবে। লাগাটাই স্বাভাবিক। এসময় সাধারণত যে বিষয়গুলো বেশিরভাগ প্রার্থীর ক্ষেত্রে লক্ষ করা যায় তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে, প্রতিটি গবেষণা পত্রের পড়ার ক্ষেত্রে কোন অংশটা অধিক গুরুত্বপূর্ণ বা কোনটি সবার আগে পড়লে সম্পূর্ণ গবেষণা পত্রটি সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা হবে এই ধরনের বিষয়গুলো নিয়ে সঠিক ধারণা অভাব; প্রতিটি গবেষণাপত্র পড়তে বা তার সারমর্ম বুঝতে দীর্ঘ সময় ব্যয় হওয়া; মাঝেমধ্যে এই পড়ালেখার বিষয়গুলো নিয়ে চরম হতাশাগ্রস্ত হওয়া। এক্ষেত্রে বলা যায়, সময়ের সাথে সাথে একজন প্রার্থীর উপরিউক্ত ভীতিগুলো একেবারে চলে যাবে। তাছাড়া একটি গবেষণাপত্র পড়া কীভাবে শুরু করতে হবে বা কোন অংশ বেশি গুরুত্বপূর্ণ তার অনেক ধরনের গাইডলাইন ইন্টারনেটে পাওয়া যায়। তাই বিষয়টিকে নিয়ে না ঘাবড়ে প্রার্থী যথাযথ চেষ্টা করলে ভালো ফল পাবে। সাফল্যের সাথে রিসার্চ প্রপোজাল শেষ করার পরে ল্যাবের কাজ শুরু করতে হয়। রিসার্চ প্রপোজাল অনুযায়ী এখানে কাজ করতে গিয়ে কিন্তু অনেক সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। কেননা, প্রপোজাল অনেকটা কাল্পনিক যেটা বাস্তবে রূপ দেওয়ার সক্ষমতা একমাত্র পিএইচডি ক্যান্ডিডেটের। এছাড়া কোনরকম ল্যাব ওয়ার্কের জাস্টিফিকেশন ছাড়া প্রপোজাল লিখতে হয় (আমার ক্ষেত্রে হয়েছিল)। তাই এক্সপেরিমেন্ট করতে গিয়ে সেটা না মেলার সম্ভবনা অনেক বেশি। কারও ক্ষেত্রে মিলে গেলে সেক্ষেত্রে তিনি সফল। না মিললে তো আর বসে থাকা যাবে না। কেন হচ্ছে না, বিকল্প পথে গিয়ে সেটার সমাধান খুঁজে বের করতে হবে। মনে রাখতে হবে, এরকম অনেক ‘ব্যর্থতা’ ও কিন্তু পিএইচডি ডিগ্রির অত্যাবশ্যকীয় উপাদান। নিত্য নতুন জ্ঞান সন্ধানের জন্য এসব ব্যর্থতায় কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে প্রার্থীর ভিতরে আরও বেশি জানার আকাক্সক্ষা তৈরি করে। তাই প্রার্থীকে নিজেই সকল সমস্যার সমাধান খুঁজে বের করতে হবে। পিএইচডি সুপারভাইজার শুধুমাত্র একজন শিক্ষার্থীকে কিছু দিক নির্দেশনা দিতে পারেন। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থী নিজেই তার ড্রাইভিং সিটে বসেন। গাড়ি কোন দিকে চালনা করলে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে সহজ হবে সেটা শিক্ষার্থীকেই নির্ধারণ করতে হবে। সুপারভাইজার বা কো-সুপারপাইজার শুধুমাত্র হেল্পারের কাজটি করতে পারেন। এর বেশি না। কেউ যদি মনে করেন, সুপারভাইজার তাকে সকল সমস্যার সমাধান বের করে দেবেন তাহলে সেটা ভ্রান্ত ধারণা। তবে একথা সত্য, সময়ে সময়ে শিক্ষার্থীকে তার সফলতা ও ব্যর্থতা নিয়ে সুপারভাইজার বা কো-সুপারভাইজারের সাথে আলোচনা করলে অনেক সমস্যার সমাধান বের করতে সহায়ক ভূমিকা রাখে। একজন শিক্ষার্থীর জন্য এই আলোচনা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সুপারভাইজার এটা নিয়ে ল্যাব মিটিং বা গ্রুপ মিটিংয়ের ব্যবস্থা করেন। বাইরের দেশের ব্যাপারে এই গ্রুপ মিটিং বা ল্যাব মিটিং সম্পর্কে আমার ডিটেলস ধারণা নেই। তবে আমার বিশ্ববিদ্যালয়ে এটা খুব কমন একটা চিত্র। আমাদের কলেজের ৩ জন প্রফেসরের সমন্বয়ে একটি গ্রুপ আছে। এই ৩ জন প্রফেসর, যতজন শিক্ষার্থী (মাস্টার্স ও পিএইচডি) সুপারভাইজ করেন তাদের নিয়ে প্রতি ১৫ দিন পরপর একবার গ্রুপ মিটিং করেন। সেখানে আমরা বিগত ১৫ দিনে কী করেছি বা আগামীতে কি করতে যাচ্ছি সেগুলো উপস্থাপন করি। এটাতে বেশ কিছু সুবিধা যেমন আছে ঠিক তেমনি অসুবিধাও আছে। সুবিধা হচ্ছে নিজের কাজ সময়মত শেষ করার জন্য একটা তাড়া থাকে। সমস্যাগুলো আলোচনা করা যায় এবং অন্যদের সাজেশন নেওয়া যায়। অসুবিধা হচ্ছে মাঝেমধ্যে এই মিটিং নিয়ে বেশ মানসিক চাপের মধ্যে থাকা লাগে। তবে সার্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে চিন্তা করলে রুটিন মাফিক ল্যাব মিটিং বা গ্রুপ মিটিং এর সুবিধা অনেক বেশি। পিএইচডি থিসিসে কমপক্ষে ৩টি থেকে ৪/৫ বা ৬টি এক্সপেরিমেন্ট সংযোজন করতে হয় (সুপারভাইজার, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপর নির্ভর করে)। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থী যাতে করে প্রতিটি এক্সপেরিমেন্ট থেকে কমপক্ষে একটি করে পাব্লিকেশন করতে পরে সে লক্ষ্য নিয়ে এগুনো ভালো। কিন্তু খেয়াল রাখতে হবে, এই প্রতিটি এক্সপেরিমেন্ট একটির সাথে অন্যটি যেন রিলেটেড হয়। অর্থাৎ কোনরকম খাপছাড়া হতে পারবে না। এক্ষেত্রে গোটা থিসিসের জন্য একটি সুনির্দিষ্ট স্টোরি লাইন থাকতে হবে। প্রতিটি এক্সপেরিমেন্ট শেষ করার সাথে সাথে শিক্ষার্থীকে পাব্লিকেশনে জন্য ডিটেইলস আউটলাইন করা উচিত। এই আউটলাইন হবে একটি স্টোরি লাইনের উপর নির্ভর করে। কেননা, প্রত্যেক পাব্লিকেশনে একটি সুনির্দিষ্ট স্টোরি লাইন থাকতে হবে। সেই স্টোরি লাইন অনুযায়ী পাব্লিকেশনের জন্য নিজের ম্যানুস্ক্রিপ্ট লিখে ফেলতে হবে। এক্সপেরিমেন্ট শেষ করার সাথে সাথে পাব্লিকেশনের দিকে নজর দিলে বেশ কিছু সুবিধা আছে। যেমন: ম্যানুস্ক্রিপ্ট লেখার সময়ে ঐ একই এক্সপেরিমেন্টের অনেক উইক পয়েন্ট ধরা পড়তে পারে; বা এক্সপেরিমেন্টের সাথে আরও নতুন কিছু সংযোজন বা বিয়োজনের প্রয়োজন পড়লে সাথে সাথে সেটা করা যায়। সকল স্ট্যান্ডার্ড সম্পন্ন হলে ফাইনাল ম্যানুস্ক্রিপ্ট লিখে যে জার্নালের ক্রাইটেরিয়া ফুলফিল করে সেখানে সাবমিট করার জন্য ম্যানুস্ক্রিপ্টের ফর্মেট করতে হয়। পাব্লিকেশনের জন্য সঠিক জার্নাল বাছাই ও একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ। এক্ষেত্রে সুপারভাইজার বা কো-সুপারভাইজার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। যেকোন এক্সপেরিমেন্ট পাব্লিশড হওয়া মানে সেটা স্থায়ীভাবে ভেলিডেশন হওয়া। তাই যত দ্রুত পারা যায় পাব্লিকেশনের দিকে নজর দেওয়া উচিত। তাছাড়া যেকোন প্রি-রিভিউ বা ভালো মানের জার্নালে পাব্লিকেশন বেশ দীর্ঘ একটি প্রক্রিয়া। তাই এক্সপেরিমেন্ট শেষ করার সাথে সাথে কোনরকম আলসেমি না করে পাব্লিকেশনের দিকে নজর দিতে হবে। অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে আবার পিএইচডি ডিগ্রির জন্য নির্দিষ্ট সংখ্যক পাব্লিকেশন লাগে সেটিও সময়ের ভিতর চুকে যায়। এছাড়াও দ্রুত পাব্লিকেশনে আরও কিছু সুবিধা আছে। যেমন: সুপারভাইজার শিক্ষার্থীর প্রতি বেশ প্লিজড থাকে, পিএইচডি ডিগ্রির সাথে সাথে পাব্লিকেশনের ঝামেলার পাঠ চুকে যায়, সর্বোপরি শিক্ষার্থীর মানসিক প্রেসার অনেক কমে যায়।
পাব্লিকেশন থাকলে শিক্ষার্থীদের মূল থিসিস লেখা নিয়েও তেমন কোনো ঝামেলা হওয়ার কথা নয়। থিসিসের সুনির্দিষ্ট স্টোরি লাইনের উপর ভিত্তি করে পাব্লিকেশন হলে শুধুমাত্র সেগুলোকে সাজিয়ে লিখলেই মূল থিসিস রেডি হবে। এক্ষেত্রে প্রতিটি এক্সপেরিমেন্টের একটির সাথে অন্যটির গভীর মিল খুঁজে বের করে থিসিস লিখতে হবে। যেমন, আগের এক্সপেরিমেন্টে এই অসুবিধা ছিল, পরবর্তী এক্সপেরিমেন্ট করে ওই সমস্যাগুলো সমাধানের চেষ্টা করা হয়েছে। একইক্রমে ধারাবাহিকভাবে বাকি এক্সপেরিমেন্টগুলোরও একটির সাথে অন্যটির যোগসূত্র থাকতে হবে।
থিসিসের এক্সপেরিমেন্ট সাজিয়ে তার সাথে ‘জেনারেল ইন্ট্রোডাকশান’ ও ‘লেটারেচার রিভিউ’ পার্ট যুক্ত করে থিসেসের ড্রাফট লিখে প্রি-ডিফেন্সের জন্য প্রস্তুত করতে হবে। বলে রাখা ভালো প্রি-ডিফেন্সের সময় থিসিসের হার্ড কপি সাবমিট করা লাগে (বিশ্ববিদ্যালয়ের উপরে নির্ভর করে)। যদিও এই কপি পরবর্তীতে পরিমার্জন ও সংশোধন করা যায়। প্রি-ডিফেন্সের পার্ট ও বেশ কঠিন। এখানেও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক গঠিত এক্সপার্ট কমিটির সামনে প্রার্থীর বিগত দিনের যাবতীয় অর্জন উপস্থাপন করতে হয়। এসময়ে এক্সপার্ট কমিটি প্রার্থীর শেষ করা প্রতিটি এক্সপেরিমেন্টের সায়েন্টিফিক ভেলিডেশন করবেন। সেক্ষেত্রে যদি আগে থেকে পাব্লিকেশন থাকে তাহলে প্রার্থীর জন্য অনেক বেশি সুবিধা হয়। কেননা, সেগুলো ইতোমধ্যে ভেলিডেশন শেষ। তবে প্রি-ডিফেন্সের সময়ে প্রতিজন এক্সপার্ট পাব্লিকেশনের সাথে সাথে থিসিসের স্টোরি লাইনের উপর বেশি জোর দিয়ে থাকেন। এক্ষেত্রেও এক্সপার্টদের পক্ষ থেকে প্রার্থীর জন্য অনেক বেশি সাজেশন থাকে। এক্সপার্টদের সাজেশন অনুযায়ী থিসিস সংশোধন করে জমা দেওয়া লাগে। এক্ষেত্রে খুব বেশি সময় প্রার্থী পায় না। চীনের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এর পরবর্তী স্টেপে থিসিসের plagiarism/similarity (অন্যের লেখা বা এক্সপেরিমেন্ট কপি করা হয়েছে কিনা যাচাই করা) চেকের জন্য পাঠানো হয়। সফটওয়্যারের মাধ্যমে এই চেক করা হয়। প্লেজিয়ারিজম রেজাল্ট শতকরা ২০ ভাগের বেশি হলে প্রার্থী কোনভাবেই পরবর্তী ধাপে যাওয়ার জন্য বিবেচিত হবে না। এর পরের ধাপ পার করাটা একজন প্রার্থীর পক্ষে একটু বেশি কঠিন। যেটাকে বলা হয় ‘ইষরহফ জবারব’ি (ব্লাইন্ড রিভিউ) প্রক্রিয়া। যেখানে প্রার্থীর এবং তাঁর সুপারভাইজারের কোনরকম তথ্য ছাড়াই এই রিভিউ প্রসেস হয়ে থাকে। ব্লাইন্ড রিভিউ এর পূর্বে প্রতিটি কলেজে জমাকৃত পিএইচডি শিক্ষার্থীর থিসিসের ফরম্যাট চেক করে ‘গ্রাজুয়েট স্কুল’ এর কাছে পাঠানো। গ্রাজুয়েট স্কুল সম্পূর্ণ ব্লাইন্ড রিভিউ প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করে। গ্রাজুয়েট স্কুল চীনের শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক পরিচালিত হয়। প্রদেশভিত্তিক এই স্কুলের কাজ সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পিএইচডি ক্যান্ডিডেটের থিসিসের ব্লাইন্ড রিভিউ, সার্টিফিকেট, একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট প্রদান সহ ডিগ্রি রিলেটেড অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজ করা। গ্রাজুয়েট স্কুল থিসিস পাওয়ার সাথে সাথে থিসিসের কন্টেন্ট দেখে রিলেটেড রিভিউয়ারের সাথে যোগাযোগ করে। যেখানে প্রতিটি থিসিসের রিভিউ করার জন্য তিনজন রিভিউয়ারের কাছে পাঠানো হয়। মোটামুটি মাস খানিকের মধ্যে (সামান্য কম বেশি হতে পারে) রিভিউ সম্পন্ন হয়ে রেজাল্ট চলে আসে। এখানে রিভিউয়ার, প্রার্থীর থিসিস মূল্যায়ন করতে বিভিন্ন ক্যাটাগরির উপর নম্বর দিয়ে থাকেন। যেগুলো যোগ করে গ্রেড নির্ধারিত হয়। এই গ্রেডের উপরই নির্ভর করে একজন প্রার্থীর বিগত চার বছরের ফলাফল। রেজাল্টের ক্যাটাগরি থাকে অ, ই, ঈ, উ এবং প্রতিটি ক্যাটাগরিকে প্রাপ্ত নাম্বারের উপর এভাবে সাজানো হয়: অ=৮৫-১০০, ই=৭৫-৮৪, ঈ=৬০-৭৪, উ<৬০। তিনজন রিভিউয়ারের প্রাপ্ত গ্রেড যদি এমন হয়: অঅঅ, অঅই, অইই, ইইই তাহলে সে পাশ। কমপক্ষে দুইটা ঈ বা একটা উ পেলেই সে ফেল। একটা ঈ পেলে পুনরায় আরেকবার (১ জনের কাছে) তার থিসিস পাঠানো হয় নতুনভাবে ব্লাইন্ড রিভিউতে। তবে প্রার্থী যে গ্রেডই পেয়ে থাকুক, রিভিউয়ারের কমেন্টের পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে জবাব দিতে হয়। কেননা প্রার্থীর লিখিত ‘পয়েন্ট টু পয়েন্ট’ দেওয়া জবাব পরবর্তী ধাপে যাচাই করা হয়। এখানে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল্যায়নটা এভাবে সাজানো। চীনের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়মের হেরফের হতে পারে। বাইরের দেশে এই নিয়ম আছে কিনা সে বিষয়ে আমার ধারনা নেই। শুনেছি যদি থিসিস মূল্যায়ন কমিটি/এক্সপার্ট কমিটি এবং সুপারভাইজার রাজি থাকে তাহলে সেখানে ডিগ্রি পেতে সমস্যা হয়না। কিন্তু চীনের এই ব্লাইন্ড রিভিউ প্রসেসে সুপারভাইজারগণ একেবারে নিরুপায়। এই ব্লাইন্ড রিভিউ প্রসেসে কতটা গোপনীয়তা অবলম্বন করা হয় সেটা ইতোমধ্যে যারা চীনে পিএইচডি সম্পন্ন করেছেন তারাই অনুধাবন করতে পারবেন। চীনাদের নিয়মের এতটা কড়াকড়ির কারণ সম্পর্কে আমার কো-সুপারভাইজার বলেছিলেন ‘কোয়ালিফাইড ক্যান্ডিডেট ছাড়া অন্য কারো জন্য পিএইচডি ডিগ্রি না। গবেষণার ক্ষেত্রে যাতে কোন স্বজনপ্রীতি বা তেলবাজি না হয় এজন্য চীনের উচ্চ শিক্ষাব্যবস্থায় এত কড়াকড়ি আরোপ করা হয়’।
সাফল্যের সাথে ব্লাইন্ড রিভিউ পাশ করার পরে রিভিউয়ারের কমেন্ট মোতাবেক থিসিস পেপার পরিমার্জন ও সংশোধন করে চূড়ান্ত ফরমাল ডিফেন্সের জন্য প্রস্তুত করতে হয়। সাধারণত সুপারভাইজার ফরমাল ডিফেন্সের আয়োজন করেন। এক্ষেত্রেও বাইরের এক্সপার্টের সাথে কলেজের এক্সপার্ট টিম নিয়ে গঠিত কমিটির সামনে প্রার্থী তার চূড়ান্ত ডিফেন্স উপস্থাপনা করেন। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে একজন এক্সটারনালের সমন্বয়ে ডিফেন্স কমিটি গঠিত হয়। আবার কোথাও কোথাও একের অধিক এক্সটারনাল থাকে। যেমন, আমার ফরমাল ডিফেন্সের সময় বাইরের বিশ্ববিদ্যালয়ের (এক্সটারনাল) তিন জন এবং আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ জন মিলে মোট আট জনের কমিটি হয়েছিল। তবে যে কয়জনই থাকুক না কেন, বিগত দিনগুলোর ফলাফল যদি প্রার্থীর পক্ষে থাকে তাহলে বলা যায় চূড়ান্ত ডিফেন্স খুব বেশি কঠিন কিছু না। শুধুমাত্র ফরমালিটি বা আনুষ্ঠিকতা। তারপরেও এখানে এক্সপার্ট কমিটি থিসিসের বেশ কিছু সংশোধন দিয়ে থাকেন।
সমস্ত ফরমালিটিস সম্পন্নের পরের কাজটুকু একজন পিএইচডি প্রার্থীর জন্য বেশ আনন্দের। ফরমাল ডিফেন্সের পরে এক্সপার্ট কমিটির যিনি চেয়ারম্যান থাকেন তিনিই প্রার্থীকে অভিনন্দন জানিয়ে চূড়ান্ত ডিগ্রির ফলাফল জানিয়ে দেন। এরপর সমাবর্তন অনুষ্ঠানে প্রার্থীর আনুষ্ঠানিক ডক্টরেট স্বীকৃত দেয়া হয়। চীনের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো প্রতিবছর এই সমাবর্তনের আয়োজন করে। একজন প্রার্থী তিনি অনার্স, মাস্টার্স বা পিএইচডি শেষ করেই এই সমাবর্তনে অংশ নিতে পারে। এক্ষেত্রে সব কলেজের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এই সমাবর্তনের আয়োজন করে থাকে। সেজন্য প্রতিজন গ্রাজুয়েট শিক্ষার্থী কমপক্ষে ২টি সমাবর্তনে অংশ নিতে পারে। একটি নিজের কলেজ কর্তৃপক্ষের আয়োজনে অন্যটি বিশ্ববিদ্যালয়ের আয়োজনে। এই সময়টাতে চীনের সব বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসগুলোতে সমাবর্তনের পোশাক পরা ঝাঁক ঝাঁক মেধাবীদের পদচারনায় মুখরিত থাকে। বিশ্ববিদ্যালয়ের আনন্দঘন ও স্মৃতিময় মুহূর্তগুলোকে স্মরণীয় করে রাখতে বন্ধুবান্ধবদের সাথে সদ্য ডিগ্রিপ্রাপ্তরা মেতে ওঠেন ক্যামেরা বন্দি করতে। শেষ হয় জীবনের কঠিনতম অধ্যায়গুলোর একটি। এখানে অতিসংক্ষেপে পিএইচডি ডিগ্রি’র সারসংক্ষেপ বর্ণনা করা হলো। পিএইচডি চলাকালীন পুরো সময়টাতে একজন প্রার্থীর ব্যক্তিত্বকে পূর্ণরূপে ভেঙ্গে আরও মজবুত করে তোলে। এই প্রক্রিয়ার সফলতা নির্ভর করে পিএইচডি সুপারভাইজরের জ্ঞান এবং দক্ষতার উপর। এখানে প্রতিনিয়ত নিত্য নতুন সমস্যা ফেস করতে হয়। একটা সমাধান করতে করতেই অন্য দুইটা সমস্যা এসে দাঁড়ায়। যেগুলো একজন শিক্ষার্থীর নিজের চিন্তাশক্তিকে অনেকাংশে বাড়িয়ে কঠিন ও বন্ধুর পথ অতিক্রম করতে সাহায্য করে। নিজের গবেষণার নানা ধরণের সমস্যার পাশাপাশি ব্যক্তি ও পারিবারিক জীবনের অনেক সমস্যা এ সময় মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। সাইন্স সবসময় পরীক্ষিত ও প্রমাণিত। সাইন্সের বিষয়াদি ল্যাবওয়ার্ক ছাড়া কখনো সম্ভব নয়। তাই অনলাইন পিএইচডি থেকে সবসময় দূরে থাকুন। এটি হলো হলো প্রভাবশালী, পয়সাওয়ালা, ভন্ড ও প্রতারকদের জন্য। যদিও কর্মক্ষেত্র ফায়দা লোটা এবং নিজেকে লোক দেখানো বিদ্বান বলে জাহির করতে আমাদের সমাজে এধরণের সুযোগ সন্ধানীদের সর্বত্রই দেখা যায়। পিএইচডি ডিগ্রি একজন প্রার্থীর জ্ঞানের পরিধি বাড়ায়। যাদের ভবিষ্যতে গবেষণা পেশায় থাকার ইচ্ছা আছে কেবলমাত্র তাদের পিএইচডি ডিগ্রির জন্য ইচ্ছা পোষন করা উচিৎ। পিএইচডি শুরু করার আগে পিএইচডি সম্পর্কিত বিষয়াদি জেনে শুনে তবে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। আমি এখানে খুব সংক্ষেপে আমার ব্যাক্তিগত অভিজ্ঞতা বর্ণনা করলাম। আগ্রহীরা অনলাইন ঘাঁটলে আরও অনেক বেশি তথ্য জানতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে অবশ্যই দেশ, কাল, বিশ্ববিদ্যালয়ভেদে প্রত্যেকের অভিজ্ঞতা ভিন্ন থেকে ভিন্নতর হওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সব কথার মদ্দাকথা হলো, পিএইচডি’র পুরো সময়টা নিয়মে ঘেরা। নিদারুণ মানসিক চাপ, কঠিন অধ্যাবসায়, সফলতা-ব্যর্থতার বহু স্মৃতি নিয়ে হাঁটিহাঁটি পা পা করে লক্ষ্যের কাছাকাছি পৌঁছানোর পরে শেষ হাসিটা কিন্তু আপনিই হাসবেন। (সমাপ্ত) লেখক: গবেষক, ফুজিয়ান এগ্রিকালচার এন্ড ফরেস্ট্রি ইউনিভার্সিটি, ফুজো, ফুজিয়ান, চীন। ajoymondal325@yahoo.com(অসমাপ্ত) লেখক: গবেষক, ফুজিয়ান এগ্রিকালচার এন্ড ফরেস্ট্রি ইউনিভার্সিটি, ফুজো, ফুজিয়ান, চীন। ajoymondal325@yahoo.com




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com