মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম ::
গজারিয়ায় অসহায় পরিবারে মাঝে ঈদ সামগ্রী উপহার গোপালপুরে আ.লীগ নেতাদের মাঝে ঈদ উপহার বিতরণ শ্রীপুরে ১ হাজার পরিবারকে মোশাররফ ভুঁইয়ার ঈদ উপহার নলডাঙ্গা পৌরসভায় প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা পেলেন ৩ হাজার অসহায় পরিবার শেরপুরে কুড়িয়ে পাওয়া মানিব্যাগ ফিরিয়ে দিলেন সিএনজি চালক নূরে আলম মাসুদ চৌধুরী এমপির পক্ষে সোনাগাজী উপজেলা জাতীয় পার্টির ঈদ উপহার বিতরণ কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী সোনাহাট স্থলবন্দরে করোনা ঝুঁকি থাকায় আমদানি-রফতানি ৬ দিন বন্ধ ঘোষণা পাবনায় অবৈধ বালু ব্যবসার অভিযোগে মামলা বরিশালে শিক্ষার্থীদের তিন দফা দাবী আদায়ে ছাত্রফ্রন্টের মানববন্ধন নওগাঁয় সাড়ে ৩ হাজার পরিবারের পাশে এফবিসিসিআই এর পরিচালক রাসেল




বৈশাখী সাজ-পোশাক

খবরপত্র ডেস্ক:
  • আপডেট সময় রবিবার, ১১ এপ্রিল, ২০২১




করোনা মহামারির কারণে অন্যবারের চেয়ে এবারের বৈশাখের আয়োজন হবে ভিন্ন এক আয়োজনে। এড়িয়ে চলতে হবে সব ধরনের জনসমাগম। বাড়িতেই হবে বৈশাখের আয়োজন। আয়োজন যেমনই থাকুক না কেন, বাঙালির ঠোঁটে থাকতে হবে লার রঙে লিপস্টিক। তার সাথে অবশ্যই থাকতে হবে মুখে মাস্ক। পহেলা বৈশাখ বাঙলির প্রাণের উৎসব। আর মাত্র কয়েকটা দিন বাকি। বাঙালির ঐতিহ্যবাহী উৎসব ‘পয়লা বৈশাখ’ দেখতে দেখতে চলে এলো। এই দিনটি উৎসবে-আনন্দে পালন করেন বিশ্বজুড়ে কোটি বাঙালি। প্রায় সব দেশেই রয়েছে বর্ষবরণের রীতি। এ রীতি বেশ পুরনো আমাদের দেশেও। পহেলা বৈশাখীর পোশাকে কাপড় হিসেবে বেছে নিন কটন, এন্ডিকটন, ভয়েল কিংবা লিলেনের মতো কাপড়। রঙের ক্ষেত্রে বৈশাখ মানেই লাল-সাদা। অন্যান্য রং যে পরা যাবে না, এমন নয়। তাই লাল-সাদার পাশাপাশি হলুদ, লেমন, পার্পেল, বাসন্তির মতো রংও বেছে নিতে পারেন। শাড়ি যদি একদমই সামলে না রাখতে পারেন তবে কামিজ কিংবা কুর্তিও পরতে পারেন। তবে উৎসবটি একেবারে দেশীয় সংস্কৃতির তাই মেয়েদের জন্য শাড়ি, আর ছেলেদের জন্য পাঞ্জাবীটাই বেশি মানানসই। বাচ্চাদের পরাতে পারেন পাতলা সুতির শাড়ি বা সালওয়ার-কামিজ। রাতে দাওয়াত কিংবা কোনো অনুষ্ঠানে অ্যান্ডি সিল্ক, ধুপিয়ান বা কাতান কাপড়ে লেইস বসানো অথবা নকশা করা বস্নাউজ পরা যেতে পারে। এই সময়ে হাই নেক, বোট নেক, পেছনে কাটা, সামনে ও পেছনে ‘ভি’ আকৃতির কাটের বস্নাউজের চল দেখা যাচ্ছে। স্টিভলেস ও কনুই পর্যন্ত হাতার বস্নাউজের সঙ্গে ফুলহাতার বস্নাউজও হবে ফ্যাশনেবল।

গরম যেহেতু বেশি থাকে এ সময়, তাই হালকা সাজ দেয়া ভালো ভারী সাজ না দিয়ে। হালকা ব্রাউনিশ বা গ্রিনিশ থাকবে চোখের শ্যাডো। আইব্রো টাচআপ অবশ্যই দেবেন। আমরা অনেক সময় এটি দিতে ভুলে যাই। চোখে কাজল, আইলাইনার ব্যবহার করতে পারেন। এরপর আইল্যাশ লাগাবেন। লিপস্টিকের ক্ষেত্রে লাল রং বেছে নিতে পারেন।
চুল: চুলে করতে পারেন খোঁপা বা বেণী বৈশাখের সাজে। এ ক্ষেত্রে হাত খোঁপা করে চুলের দু পাশে বা পুরোটা জুড়ে গেঁথে নিতে পারেন দেশি ফুলের মালা।
মাঝারি বা ছোট চুল হলে এখনই দিয়ে ফেলুন মানানসই কোনো হেয়ার কাট। উৎসবের দিন সেটাকে আয়রন করে একপাশে রেখে দিতে পারেন বা ছোট্ট কোনো ব্যান্ড দিয়ে হাল্কা হাতে একটু অগোছালো করে আঁটকে নিতে পারেন। তবে তাতেও ফুল থাকা চাই-ই চাই! চুল না ছেড়ে হালকা বেঁধে দিতে পারেন। করতে পারেন সাধারণ বেণী বা ফ্রেঞ্চ বেণী। আবার সামনে একটু মেসি স্টাইল করে, পেছনটা খোঁপা করা যেতে পারে। সামনের দিকে ফ্রেন্স বেণী করে পেছনে খোঁপাও করা যেতে পারে। মাঝখানে একটি সিঁথি করে খোঁপা করতে পারেন। খোঁপা বা বেণীতে ফুল লাগাতে ভুলবেন না যেন।
গয়না: মাটির গয়না বেছে নেয়া ভালো বৈশাখে শাড়ির সঙ্গে। মাটির মালা হতে হবে লম্বা। এছাড়া কাঠ, রুপা, মুক্তা বা তামার মালা পরতে পারেন। ভারী গয়না পরতে না চাইলে ফুলের মালা বেছে নিন। বাঙালি নারী গয়না না পরলেও দু’হাত ভর্তি চুড়ি সাজ পূর্ণ করে দেয়। শাড়ির পাড়ের সঙ্গে মিলিয়ে রেশমি চুড়ি পরতে পারেন। মাটির বা কাঠের চুড়িও কিন্তু বেশ মানিয়ে যায়। তবে একটি ব্যাপারে আগে থেকে জেনে রাখা ভালো, আর সেটি হলো এবারের রমজানের প্রথম দিন হতে পারে বৈশাখের দিন। আর তাই সাজগোজও করতে হবে বিষয়টি মাথায় রেখে। সে ক্ষেত্রে খাবারদাবারেরও আনতে হবে পরিবর্তন।




শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর









© All rights reserved © 2020 khoborpatrabd.com
Theme Developed BY ThemesBazar.Com